লংকার জালে ৭ গোল

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৯      

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শুরুর দিকে অগোছালো ছিল বাংলাদেশের কিশোররা। তাদের ৩০ মিনিট পর্যন্ত আটকে রেখেছিল শ্রীলংকা। দুই মিনিট পর প্রথম গোল করার পরই ছন্দ খুঁজে পায় বাংলাদেশ। গুনে গুনে শ্রীলংকার জালে ৭ বার বল পাঠিয়েছে লাল-সবুজের দলটি। গতকাল কল্যাণীতে অনুষ্ঠিত অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ ৭-১ গোলে লংকাকে উড়িয়ে দিয়ে ফাইনালের পথে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল। সাত গোলের পাঁচটিই করেছেন আল আমিন হোসেন। বাকি দুটি গোল করেন অধিনায়ক রাকিবুল ইসলাম ও আল মিরাদ। আগামীকাল নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে নেপালের মুখোমুখি হবে মোস্তফা আনোয়ার পারভেজের দল। দুই জয়ে বাংলাদেশের পয়েন্ট ৬। ভুটানকে ৭-০ গোলে হারানো ভারতের পয়েন্টও সমান ৬, গোল গড়ে পিছিয়ে থাকায় দুইয়ে বাংলাদেশ।

শুক্রবার কলকাতার পার্শ্ববর্তী শহর কল্যাণীতে তীব্র গরমের মধ্যে খেলা বাংলাদেশ ৫-২ গোলে হারিয়েছিল ভুটানকে। এদিনও তাপমাত্রা ছিল ত্রিশের ওপরে। শুরু থেকে আক্রমণ চালালেও ফিনিশিংটা প্রত্যাশামতো হচ্ছিল না বাংলাদেশের। অবশেষে ৩২ মিনিটে এলো কাঙ্ক্ষিত গোল। বক্সের বাইরে থেকে সতীর্থের পাস খুঁজে নেয় আল আমিন রহমানকে। দ্রুতগতিতে বক্সে ঢুকে বাঁ পায়ের প্লেসিং শটে গোলরক্ষক থারুসা রাশমিকাকে পরাস্ত করে এ ফরোয়ার্ড। দ্বিতীয় গোল পেতে বাংলাদেশকে অপেক্ষা করতে হয়েছে ৯ মিনিট। এবার গোলদাতা অধিনায়ক রাকিবুল। লংকান এক খেলোয়াড়ের কাছ থেকে বল কেড়ে নেয় বাংলাদেশ অধিনায়ক। প্রতিপক্ষের কয়েকজনকে কাটিয়ে চমৎকারভাবে বল নিয়ে বক্সে ঢুকে পড়া রাকিবুলের শট শ্রীলংকার গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে জালে জড়ায়। ৪৪ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় এবং দলের তৃতীয় গোল আসে আল আমিনের পা থেকে।

প্রথমার্ধে তিন গোল করা বাংলাদেশ বিরতির পর করে আরও চার গোল। এর মধ্যে তিনটিই করে আল আমিন। ৫৯ মিনিটে পেনাল্টিতে গোল করার পর ৬৬ ও ৭৭ মিনিটেও স্কোরশিটে নাম লেখায় আল আমিন। শেষের দুটি গোলই কাটব্যাক থেকে করে সে। হ্যাটট্রিকসহ পাঁচ গোল। ভারতের মাটিতে এমন কীর্তি গড়ায় তৃপ্ত ফরোয়ার্ড আল আমিন, 'বাইরের দেশে এসে খেলে নিজের দেশের জন্য পাঁচটি গোল করতে পেরেছি, এটা আমার জন্য অনেক বড় অর্জন।'