ফ্ল্যাশিং মিডোয় ফিরেছে রুশ-মার্কিন দ্বৈরথ

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৯      

স্পোর্টস ডেস্ক

রাজনৈতিক কারণে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কটা একপ্রকার সাপে-নেউলে। বিভিন্ন সময় যার প্রমাণও মেলে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে দুই দেশকে দেখা যায় ভিন্ন মেরুতে। তাতে ছড়ায় উত্তেজনাও। কখনও আবার যুদ্ধংদেহী মনোভাব। বলতে পারেন, একে অপরের ঘোরতর শত্রু। সেই দুই প্রান্তের দুই টেনিস তারকা এবারই প্রথম ফ্ল্যাশিং মিডোয় হচ্ছেন মুখোমুখি। আজ বছরের শেষ গ্র্যান্ডস্লাম। নতুন বছরের আগে দারুণ কিছুর স্বপ্ন নিয়েই নামবেন তারা- একজন সেরেনা উইলিয়ামস, আরেকজন মারিয়া শারাপোভা।

একটা দিক দিয়ে এই দুই তারকার বেশ মিল। একটা সময় দু'জনই ছিলেন নারী টেনিসের সুপার ডুপার। নিয়মিত কোর্ট রাঙিয়ে জয় করেছেন একের পর এক শিরোপা। অবশ্য সেরেনার চেয়ে শারাপোভার অর্জনের ঝুলিটা হালকা। তবে হঠাৎ খেই হারানো দু'জন আবার খুঁজছেন নিজেদের পুরনো রূপটা। ২০১৭ অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জেতার পর আর বড় কোনো মুকুটের দেখা পাননি সেরেনা। মা হওয়ার কারণে লম্বা একটা সময় কাটিয়েছেন টেনিস কোর্টের বাইরে। এরপর ফিরে কয়েকটা ঝলক দেখালেও পাননি কাঙ্ক্ষিত ট্রফি। অন্যদিকে ডোপ পাপে নিষিদ্ধ ছিলেন শারাপোভা। ২০১৪ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেন জেতার পর আর সফলতার ছোঁয়া পাননি এই রুশকন্যা। এবার বছরের শেষ দ্বৈরথে দাঁড়িয়ে দিতে হচ্ছে অগ্নিপরীক্ষা, তাও আবার যাত্রাতেই। আজ শুরু ইউএস ওপেনের ১৩৯তম আসর। যে আসরে নারী এককের প্রথম রাউন্ডে সেরেনার বিপক্ষে নামবেন শারাপোভা।

আগের বছর ফাইনালে নাওমি ওসাকার কাছে হেরে ইউএস ওপেনের শিরোপা হাতছাড়া হয় সেরেনার। রেফারির সঙ্গে বিতর্ক, কোর্টে আবেগ হারানো এসবের মাঝে রাজ্যের হতাশা নিয়ে বাড়ি ফিরতে হয় তাকে। এবার সেই মঞ্চে সেরেনা কি পারবেন রেকর্ড ২৪তম মুকুট জিততে। যদিও গত তিনটি গ্র্যান্ডস্লামে নামার আগেও এই মাইলফলক গড়ার সুযোগ ছিল। পারেননি! কখনও মাঝপথে, কখনও কয়েক রাউন্ড পর বিদায় নিতে হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কৃষ্ণকলিকে। এবার হলেও হতে পারে। তবে ইউএস ওপেন জিতলে নারী এককের সবচেয়ে বেশি ২৪টি গ্র্যান্ডস্লামজয়ী মার্গারেট কোর্টকে স্পর্শ করবেন সেরেনা।

ধারেভারে শারাপোভার চেয়ে অনেকটা এগিয়ে সেরেনা। অতীত পরিসংখ্যানও সেই কথা বলছে। এখন পর্যন্ত ২২ বারের দেখায় ১৯ বারই জিতেছেন সেরেনা। বাকি তিনবার জয় পান শারাপোভা। এ ছাড়া সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের দিক থেকেও এগিয়ে থাকবেন সেরেনা। বর্তমানে নারী এককের আট নম্বর তারকা তিনি। যেখানে শারাপোভার অবস্থান ৮৭। তা ছাড়া অভিজ্ঞতার হিসেবেও শারাপোভার চেয়ে কয়েকগুণ এগিয়ে সেরেনা। ঘরের মাঠে এর আগে ছয়বার শিরোপা জিতেছেন তিনি। বিপরীতে শারাপোভা জিতেছেন একবার।

এ দিকে স্নায়ুঠাসা লড়াইয়ের আভাস মিলছে পুরুষ এককেও। বিশেষ করে টপ থ্রির মধ্যে। গতবারের চ্যাম্পিয়ন নোভাক জকোভিচ আছেন ফর্মের তুঙ্গে। রাফায়েল নাদালও শিরোপা জিততে মরিয়া। আর সবচেয়ে অভিজ্ঞ রজার ফেদেরার চাইছেন ক্যারিয়ারের গোধূলিলগ্নটা আরেকটু রাঙাতে। সেজন্য এবারের ইউএস ওপেন জিতে উন্মুক্ত যুগের নাম্বার ওয়ান বনে যেতে প্রস্তুত এই সুইচ কিংবদন্তি।

এই তিনজন ছাড়াও ইউএস ওপেনের ফেভারিট তালিকায় থাকবেন শীর্ষ বাছাইয়ে চারে থাকা ডোমিনিক থিম। গত বছর এই প্রতিযোগিতায় অনেকটা পথ গিয়েও তাকে ফিরতে হয় শূন্য হাতে। সেই দুঃস্মৃতি ভুলে এবার দারুণ কিছুর আশায় তিনি। তা ছাড়া গ্রিসের স্টেফানো সিসিপাসও আছেন ছন্দে। বাদ রাখা যায় না অ্যালেকজান্ডার জেভেরেভের নামও। তবে নারী এককে নাওমি ওসাকার সঙ্গে অসি তারকা আশলে বার্টির উজ্জ্বল সম্ভাবনা। শিরোপার দৌড়ে এই দু'জনের সঙ্গে থাকবেন সিমোনা হালেপ এবং ক্যারোলিন প্লিসকোভাও।