চ্যালেঞ্জটা ডিফেন্ডারদেরও

বিশ্বকাপ বাছাই

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৯      

ক্রীড়া প্রতিবেদক

চ্যালেঞ্জটা ডিফেন্ডারদেরও

গতকাল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপ বাছাই ক্যাম্পের দ্বিতীয় দিনেও অনুশীলনে ঘাম ঝরিয়েছেন জেমি ডের শিষ্যরা। ১০ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান- বাফুফে

শারীরিক উচ্চতায় আফগান ফুটবলাররা অনেক এগিয়ে। জার্মানির মাইনর লীগে খেলা আবাসিন আলি খিলরা সেট পিসে ভয়ঙ্কর। অতীতে প্রতিপক্ষের সেট পিস সামলাতে গিয়ে এলোমেলো হয়েছিলেন বাংলাদেশের ডিফেন্ডাররা। ১০ সেপ্টেম্বর তাজিকিস্তানের দুশানবে অনুষ্ঠেয় ২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের দ্বিতীয় রাউন্ডে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটি ডিফেন্ডারদের জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে গতকাল অনুশীলন শেষে এমনটাই জানিয়েছেন ডিফেন্ডার ইয়াসিন খান, 'প্রতিটি ম্যাচই ডিফেন্ডারদের জন্য চ্যালেঞ্জ। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সেটা আরও কঠিন। আমি এটা বলতে পারি, আগে থেকে আমাদের ডিফেন্সিভ লাইন অনেক ভালো।'

বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের জেমি ডের ঘোষিত ২৬ সদস্যের প্রাথমিক দলের বেশিরভাগই তরুণ। ইয়াসিনসহ চার-পাঁচ ফুটবলার সিনিয়র। তারুণ্যের জয়গান গাওয়ার স্বপ্ন দেখা লাল-সবুজের দলটি ব্যস্ত কঠোর অনুশীলনে। রৌদ্রের মধ্যে সকালে অনুশীলনে মগ্ন বিপলু আহমেদ-রবিউল হাসানরা। সবার মধ্যেই আছে ভালো করার তাড়না। দেশকে কিছু এনে দেওয়ার ক্ষুধা। ম্যাচটি আফগানিস্তানের জন্য হোম; কিন্তু দুশানবে হওয়ায় সেটা দু'দলের জন্য একপ্রকার অ্যাওয়ে ম্যাচ। বাছাইয়ের প্রথম ম্যাচটি থেকে পয়েন্ট পেতে মরিয়া ইয়াসিন, 'ম্যাচটা ফিফটি-ফিফটি চান্স। এখানে যারা ভালো করবে তাদেরই জেতার চান্স আছে। আফগানিস্তানের শেষ যে ম্যাচগুলো আমরা দেখেছি, ওরা বেশিরভাগ ম্যাচেই ড্র করেছে, জিততে পারছে না। ওদের দুর্বল দিকগুলো নিয়ে কাজ করছি। বর্তমানে কোচ আমাদের সেগুলোর ওপরই বেশি জোর দিয়েছেন। এখন দেখা যাক, আমরা কী করতে পারি। কোচ এরই মধ্যে আমাদের সঙ্গে কথা বলেছেন, যে কোনোভাবেই হোক এক পয়েন্ট যেন আমরা নিয়ে আসতে পারি। কারণ যেহেতু এটা আমাদের অ্যাওয়ে ম্যাচ, হোম ম্যাচ নয়। আমাদের এখানে আসলে লক্ষ্যটা ভিন্ন হবে।'

জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়াটা এখন অনেক কঠিন। তরুণদের সাফল্যে সিনিয়রদের জন্য তৈরি হয়েছে কঠিন পথ। জেমির কাছে অভিজ্ঞতা নয়, পারফরম্যান্সই মুখ্য। সেটা ভালো করেই জানা ইয়াসিনের, 'জাতীয় দলে খেলা আগের চেয়ে অনেক চ্যালেঞ্জ। বললাম আমি খেলব, এখন আর এসব সম্ভব নয়। ফিটনেস, পারফরম্যান্স যদি সবকিছু ভালো থাকে, তাহলেই খেলতে পারবেন। তা ছাড়া কোনো সুযোগ নেই। আমার নিজের প্রতি নিজের আত্মবিশ্বাস আছে। তার পরও সবকিছু নির্ভর করছে কোচের ওপর।'

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটি হবে টার্ফে। বাংলাদেশ দল অনুশীলন করছে ঘাসের মাঠে। চাইলে টার্ফের মাঠ কমলাপুরে গিয়েও অনুশীলন করতে পারত বাংলাদেশ। কেন কমলাপুর অনুশীলন করছেন না, তার ব্যাখ্যা এভাবে দিলেন কোচ জেমি ডে, 'ওখানে যে টার্ফে খেলা হবে, কমলাপুর স্টেডিয়ামের টার্ফ একই রকম নয়। ওখানে গিয়ে আমরা টার্ফে অনুশীলন করব।' বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচের আগে ৫ সেপ্টেম্বর কাতারের মুখোমুখি হবে আফগানিস্তান। তারা আগে ম্যাচ খেলায় বাংলাদেশের জন্য সুবিধা না অসুবিধা? এমন প্রশ্নের জবাবে জেমি বলেন, 'তারা (আফগানিস্তান) যদি ভালো পারফরম্যান্স দেখাতে পারে, তাহলে সেটা তাদের জন্য সুবিধা হবে, আর হেরে গেলে তাদের জন্য অসুবিধা হবে। আমাদের সঙ্গে লড়াইয়ের আগে কিছুটা হলেও তারা পিছিয়ে থাকবে।'

আন্তর্জাতিক ম্যাচে বাংলাদেশের মূল সমস্যা হলো গোল স্কোরার। লাওসের বিপক্ষে বাছাইয়ের প্রথম রাউন্ডে জয়সূচক গোলটি এসেছে মিডফিল্ডার রবিউল হাসানের পা থেকে। প্রিমিয়ার লীগের সর্বশেষ মৌসুমে গোল পেয়েছেন নবীব নেওয়াজ জীবন-মতিন মিয়ারা। জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া এসব স্ট্রাইকার লীগে গোল পাওয়াকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন ফুটবলবোদ্ধারা। বসুন্ধরা কিংসে খেলা ফরোয়ার্ড মতিন মিয়াও মনে করেন গোল স্কোরিংয়ে এবার সমস্যা হবে না। দেশের জার্সিতে প্রথম গোল করতে মুখিয়ে আছেন সিলেটের এ ফরোয়ার্ড, 'লীগে খেলে আমাদের আত্মবিশ্বাসটা অনেক বেড়ে গেছে। সেটা জাতীয় দলে কাজে লাগাতে চাই। যেমন ধরেন, আগে জাতীয় দলে স্কোরার খুব কম ছিল। এবার লীগে অনেকেই গোল পেয়েছে। এটা আমাদের আত্মবিশ্বাসের  লেভেলটা অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। আমি গোল করতে না পারলে জীবন ভাই গোল করেছেন, আবার জীবন ভাই গোল না করতে পারলে আমি গোল করেছি। এ রকম অনেক খেলোয়াড়ই আছে। তাই আশা করি, এবার স্কোরার জন্য কোনো ক্ষতি হবে না। আমরা জাতীয় দলে ভালো কিছু করব।'