'রোনালদো থাকলে লড়াইটা জমত'

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৯      

স্পোর্টস ডেস্ক

আগের মতো আর জমছে না রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সার লড়াই। লা লিগায় কখনও একদল আধিপত্য দেখাচ্ছে, আবার কখনও অন্য দল। কখনও বার্সা জিতছে, কখনও রিয়াল। লড়াইটাও অনেকটা নিরুত্তাপ। সেজন্য অবশ্য কয়েকটা কারণ সাদা চোখে দেখা গেলেও লিওনেল মেসি মনে করছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো থাকলে এমনটা হতো না। তিনি রিয়ালে থাকলে হয়তো লড়াইটা আরও জমত। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে ছয়বারের এ বর্ষসেরা ফুটবলার রোনালদোকে নিয়ে বলতে গিয়ে জানিয়েছেন নানা কথা। তিনি চেয়েছিলেন রোনালদো রিয়ালেই থাকুক। তাহলে ক্ল্যাসিকো কিংবা শিরোপার দৌড়টা আরও জমজমাট হবে, 'আমি তাকে রিয়ালেই দেখতে চেয়েছি। সে থাকলে ক্ল্যাসিকোতে বাড়তি দ্বৈরথ যোগ হতো, লড়াইটাও জমত বেশ।' রিয়াল এখনও দারুণ দল। তাদের একাধিক ভালো খেলোয়াড় আছে। তবু রোনালদোর অভাবটা মনে পড়বে, যেমনটা ভাবছেন মেসি, 'রিয়াল সবসময়ই চমৎকার দল। তারা প্রতিপক্ষের জন্য চ্যালেঞ্জিং। তাদের দলে দারুণ কিছু খেলোয়াড় আছে, তারপরও আমার মনে হয় রোনালদোর অভাবটা বোধ করে। কেননা প্রতিটি টুর্নামেন্টে অনেকদূর এগোতে তার অবদান অনেক। রিয়ালের হয়ে সে অনেক ইতিহাস গড়েছে।'



নেইমারকে ফিরে না পাওয়ার শঙ্কা

গত ট্রান্সফার উইন্ডোতে নেইমারের বার্সা ফেরা নিয়ে কম কথা হয়নি। দলের শেষ ঘণ্টা পর্যন্ত চলে এ গুঞ্জন। শেষ পর্যন্ত যদিও পিএসজিতেই থেকে গেলেন নেইমার। তবে সামার ট্রান্সফারে আবারও নেইমারের জন্য দৌড়ঝাঁপ করবে কাতালান ক্লাবটি। এবারও যদি নেইমারকে বাগে না পায় বার্সা, তাহলে হয়তো রিয়াল মাদ্রিদ নিয়ে যাবে তাকে। মেসির মনে এমন একটা ভয়, 'সত্যি করে বলতে এটা সম্পূর্ণ মার্কেটের ওপর নির্ভর করছে। সে যদি বার্সায় না আসতে পারে বোধহয় রিয়ালেই নাম লেখাবে। সে ঠিকানা বদলাতে চায়। তার চেয়ে বড় কথা হলো, রিয়ালপ্রধান ফ্লোরেন্তিনো পেরেজ নেইমারের জন্য কিছু করতে চান।'



প্রিয় গোল, পছন্দের ম্যাচ

২০০৯ সালের চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে ২-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল বার্সেলোনা। রোমের সে দিনটা এখনও মেসির মনে দাগ কেটে আছে। সে ম্যাচে দশ মিনিটের মাথায় ইতোর গোলে এগিয়ে যায় কাতালানরা। আর ৭০তম মিনিটে মেসির দুর্দান্ত এক গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বার্সা। সেই গোলটিকেই সেরা বাছলেন মেসি আর সেরা ম্যাচের আসনে জায়গা পেল ২০১১ সালে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষের সেমিফাইনালটি। যে ম্যাচে রিয়ালকে ২-০ গোলে পরাজিত করেন মেসিরা, 'রোমে ম্যানইউর বিপক্ষে গোলটি আমার অনেক প্রিয়। আর ২০১১ সালে সেমিতে রিয়ালের বিপক্ষে ম্যাচটি স্মরণীয়। জানি না কতটা রোমাঞ্চকর ছিল। তবে আমার কাছে এখনও ইউনিক।'



গার্দিওলাই সেরা

লম্বা একটা সময় ক্যাম্প ন্যুতে আছেন মেসি। সেই লা মাসিয়া থেকে বার্সার মূল দলে পেয়েছেন একাধিক কোচের সাক্ষাৎ। তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি মেসির মনে ধরেছে বর্তমান ম্যানচেস্টার সিটির কোচ পেপ গার্দিওলাকে। তার অধীনে বার্সাও জিতেছিল অসংখ্য মুকুট। আর সে সময় মেসিও ছিলেন ফর্মের তুঙ্গে। তাছাড়া গুরু-শিষ্যের মধ্যে বোঝাপড়াও ছিল দারুণ, 'গার্দিওলা সবার সেরা।

আর এনরিকে তার কাছাকাছি। নাম্বারিং করলে আমি এনরিকেকে

দুইয়ে রাখব।'