ভেন্যু পরিদর্শনের অংশ হিসেবে গতকাল কুমিল্লার ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়ামে আসেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। ম্যাচ শুরুর আগে স্টেডিয়ামের ভেতরের পরিবেশ দেখে বাফুফে সভাপতি এতটাই মুগ্ধ হন যে, ভবিষ্যতে এই ভেন্যুতে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনের ইচ্ছের কথাও জানান। কুমিল্লাবাসীর জন্য আনন্দের খবরের দিনে হতাশার খবরও শুনিয়েছেন সালাউদ্দিন। মার্চে অনুষ্ঠেয় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ না হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি বলে জানান তিনি।

প্রিমিয়ার লিগে কুমিল্লা ভেন্যুটি বসুন্ধরা কিংস ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের হোম ভেন্যু। গত মৌসুমে এ ভেন্যুর সমালোচনা করা বসুন্ধরা নিজ উদ্যোগে মাঠের সংস্কার করে। আধুনিক মানের এ স্টেডিয়ামে সমস্যা হচ্ছে গোলপোস্টের পেছনে, যা ফুটবলের জন্য আদর্শ নয়। অবশ্য মাঠটা ক্রিকেট উপযোগী বানিয়েছেন আয়োজকরা। তবে ভবিষ্যতে প্রেসবক্স এক পাশে নেওয়ার জন্য কাজ করবেন বলে জানান সালাউদ্দিন, 'কুমিল্লায় এসে দেখেছি যে মাঠের কন্ডিশন খুবই ভালো। গ্যালারিও ভালো। আজকে দেখলাম প্রচুর দর্শক এসেছে। এটা অবশ্য ইতিবাচক। উনাদের (কুমিল্লা জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন) সঙ্গে আলাপ করে সেটা বুঝলাম এবং আমিও আশা করি, ভবিষ্যতে ফুটবলের জন্য এটা ভালো একটা ভেন্যু। ভবিষ্যতে এখানে দু-চারটা আন্তর্জাতিক ম্যাচ আমরা খেলব। আর আমি উনাদের সঙ্গে আলাপ করব যেন প্রেসবক্সটা এক পাশে নিয়ে আসে।'

বাফুফের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ১ থেকে ১১ মার্চ হওয়ার কথা বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে মার্চে গোল্ডকাপ আয়োজন করা যেমন কঠিন, ব্যস্ত শিডিউলের কারণে এ বছর হওয়াটা আরও কঠিন। সবকিছু বিবেচনা করে বাফুফে সভাপতির মনে হয়েছে যে নির্দিষ্ট সময়ে গোল্ডকাপ আয়োজন করাটা কঠিন, 'বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ করতে গিয়ে বাধা-বিপত্তি দেখছি, সেটা হলো করোনাভাইরাসে কোনো দলই শতভাগ নিশ্চয়তা দিচ্ছে না। সবাই বলছে, একটু ওয়েট করেন। ভ্যাকসিন তো মাত্র বের হয়েছে। এর মধ্যে আরেকটা জিনিস আপনাকে মাথায় নিতে হবে, মার্চে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব আছে। আপনি যাদের সঙ্গে খেলবেন, সবাই কিন্তু ব্যস্ত থাকছে। এ জন্য আমরা খুব সমস্যায় আছি। আমাদের পুরো অফিস এটা নিয়ে কাজ করছে। তারা অনেকগুলো দেশের সঙ্গে যোগাযোগ করছে। কেউ না করছে না, আবার কেউ হ্যাঁ করছে না। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে আপনারা গোল্ডকাপ নিয়ে ফেডারেশনের কাছ থেকে আপডেট পাবেন।'

মন্তব্য করুন