মুস্তাফিজের কাছে দেশ আগে

প্রকাশ: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ক্রীড়া প্রতিবেদক

মুস্তাফিজের কাছে দেশ আগে

বিমানে উঠে মুস্তাফিজের সেলফি, সঙ্গে আফিফ হোসেন। এক বছর পর দেশের বাইরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে যাচ্ছেন তারা - টুইটার

আইপিএলের জন্য ছুটির দরখাস্ত না দিয়ে দেশমাতৃকার হয়ে খেলাকেই প্রাধান্য দিয়ে মুস্তাফিজ শুধু নিজের গ্রহণযোগ্যতাই বাড়িয়ে দেননি, সেইসঙ্গে 'তারকা ক্রিকেটারদের দেশপ্রেম' নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের মধ্যে যে সন্দেহ ও রোষের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে, বিসিবির মধ্যে যে হতাশা ও অনাস্থার জন্ম দিয়েছে, তাতেও খানিকটা বিশ্বাসের নড়বড়ে ভিত শক্ত হয়েছে

মুখের বলা কিছু কথা কখন যে 'বাণী' হয়ে যায়, ঘটনার আকস্মিকতায় সেই বক্তাও হয়তো তাৎক্ষণিক তা বুঝে উঠতে পারেন না। যেমনটি পারেননি গতকাল মুস্তাফিজুর রহমান। নিউজিল্যান্ড সফরে রওনা হওয়ার আগে মিরপুর একাডেমি থেকে বেরিয়ে মুস্তাফিজ বলে যান- 'সবার আগে আমার দেশের খেলা। শ্রীলঙ্কা সফরে যদি টেস্ট দলে থাকি, তাহলে আমি টেস্ট খেলব।' জাতীয় দলের কোনো ক্রিকেটারের মুখে এমন কথাই তো স্বাভাবিক; কিন্তু যখন সেটা কেউ আইপিএলের কোটি টাকার কল্পতরুর ডাক উপেক্ষা করে বলার হিম্মত দেখান, তখনই তো সেটা 'বাণী' হয়ে যায়। আইপিএলের জন্য ছুটির দরখাস্ত না দিয়ে দেশমাতৃকার হয়ে খেলাকেই প্রাধান্য দিয়ে মুস্তাফিজ শুধু নিজের গ্রহণযোগ্যতাই বাড়িয়ে দেননি, সেইসঙ্গে 'তারকা ক্রিকেটারদের দেশপ্রেম' নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের মধ্যে যে সন্দেহ ও রোষের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে, বিসিবির মধ্যে যে হতাশা ও অনাস্থার জন্ম দিয়েছে, তাতেও খানিকটা বিশ্বাসের নড়বড়ে ভিত শক্ত হয়েছে।

আইপিএলে (এপ্রিল-মে) খেলার কারণে দেশের হয়ে এপ্রিলের মাঝামাঝি শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুটি টেস্ট খেলতে না চেয়ে ছুটি নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। আইপিএলে কলকাতার নাইট রাইডার্স তিন কোটি ২০ লাখ রুপিতে সাকিবকে কিনে নিয়েছে এবার। মুস্তাফিজকেও রাজস্থান রয়্যালস কিনেছে এক কোটি রুপিতে। সাকিব সেই ডাকে সাড়া দিতেই সোশ্যাল মিডিয়ার হ্যাশট্যাগে দেশপ্রেম। যুগ যখন সোশ্যাল মিডিয়ার, ক্রোধ যখন অপরিমেয়, তখন তুমুল আবেগের স্রোত ক্রিকেটারদের দেশপ্রেমের গভীরতা মাপতে শুরু করেছে। ঠিক তখনই মুস্তাফিজ জানিয়ে দিলেন, দলে জায়গা পেলে তিনি অবশ্যই টেস্ট খেলবেন। যদিও আগের দিন বিসিবিপ্রধান নাজমুল হাসান পাপনের কাছে গিয়ে মুস্তাফিজ তার আইপিএলে খেলার কথা জানিয়েছিলেন। যেহেতু সাকিবকে ছুটি দেওয়া হয়েছে, সেখানে মুস্তাফিজকেই বা 'না' করবেন কীভাবে। তাই অনেকটা অসহায়ের মতো বিসিবিপ্রধান বলেছিলেন- 'এখানে আমার কিছুই বলার নেই, তুমি যদি টেস্ট খেলতে না চাও বা আইপিএলে যেতে চাও, তাহলে আমাদের একটা চিঠি দিও। তখন আমরা তোমাকে আটকাব না।' বিসিবিপ্রধানের সঙ্গে দেখা করে বাইরে বেরিয়ে আসার পর চেনা সাংবাদিকদের কাছে মুস্তাফিজও কয়েক দিন সময় চেয়ে নিয়েছিলেন। বলেছিলেন, নিউজিল্যান্ড যেয়ে নিই, ওখানে চার-পাঁচ দিন পর ভেবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাব।

কিন্তু সেটা জানাতে ১২ ঘণ্টাও সময় নেননি মুস্তাফিজ। আইপিএলের কাঞ্চনমূল্য নয়, বিবেক আর কৃতজ্ঞ আত্মার ডাকেই সাড়া দিয়েছেন তিনি। আইপিএলের বাজারে সাকিব ও মুস্তাফিজ- এ দুই বাংলাদেশির বেশ নামডাক রয়েছে। গত বছর মুস্তাফিজকে বিসিবি থেকেই আইপিএলের জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয়নি। তবে এবার আর তাকে আটকাতে চাইছে না বিসিবি। শুধু মুস্তাফিজই নন, দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের কাউকেই 'জোর করে খেলানো হবে না' বার্তাও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, এক-দেড় বছরের মধ্যে নতুন একটি দল গড়ার। আসলে প্রতিটি সিরিজ বা টুর্নামেন্টের আগেই কিছু সিনিয়রের এটা-ওটা অজুহাতে খেলতে না চাওয়ার ব্যাপারটি অসহ্য রকমের হয়ে দাঁড়িয়েছিল বিসিবির কাছে। ঘরোয়া ক্রিকেটেও (ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট বাদে) তাদের আগ্রহ কম। দলের একাদশে অন্তত চার সিনিয়রের পারফরম্যান্স কখনোই 'নেতিবাচক' চোখে দেখেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। তাই বাকি সাতজনের পারফরম্যান্স নিয়েই যত সমালোচনা হয়েছে। দিনের পর দিন এভাবে চলতে থাকায় পরবর্তী প্রজন্মও দাঁড় করানো যায়নি। বিষয়টি এতদিন এড়িয়ে গেলেও এবার শক্ত হাতে হাল ধরতে চলেছে টিম ম্যানেজমেন্ট।

বিসিবির ওই শক্ত অবস্থানের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই গতকাল মুস্তাফিজের বিখ্যাত ঘোষণা- 'আমি দেশের হয়েই খেলব।'

মুস্তাফিজের এই সাহসী সিদ্ধান্তের পুরস্কার বিসিবি দিতে রাজি। গত বছর লাল বলের কেন্দ্রীয় চুক্তিতে ছিলেন না মুস্তাফিজ। তাকে টেস্টের জন্য বিবেচনাও করেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাকে টেস্ট খেলানো হয়েছে। ম্যানেজমেন্টের পরিকল্পনা শ্রীলঙ্কা সফরেও খেলানোর। তবে যেহেতু এ বছর ভারতে টি২০ বিশ্বকাপ, তাই মুস্তাফিজকে শেষ পর্যন্ত শ্রীলঙ্কা সফরে না রেখে আইপিএল খেলানোর জন্য ছাড়পত্র দিতে পারে বিসিবি। 'শ্রীলঙ্কায় যদি টেস্ট দলে না থাকি, তাহলে আমি বিসিবিকে বলব- যদি বিসিবি আমাকে ছাড়ে তাহলে আইপিএল খেলব। তবে দেশের হয়ে বা আইপিএলে খেলার বিষয়ে অন্য কোনো চাপ নেই।' কোনো বাউন্সার বা ইয়র্কার নয়, তার হাতের জাদু কাটারও নয়- শুধু তার মুখের কিছু শব্দ দিয়ে কোটি কোটি ভক্তের হৃদয় জিতে নিলেন এবার মুস্তাফিজ।