চোটে বিপর্যস্ত গোটা দল। সার্জিও রামোস, করিম বেনজেমাসহ প্রথম একাদশের ছয়জন নেই। তার পরও আতালান্তার বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে ১-০ গোলে জিতেছে রিয়াল মাদ্রিদ। খেলার একেবারে শেষ দিকে ফারল্যান্ড মেন্ডি রিয়ালের পক্ষে জয়সূচক গোলটি করেন। তবে ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি ২-০ গোলের অনায়াস জয় পেয়েছে। বরুশিয়া মনশেনগ্লাডবাখের বিপক্ষে বার্নার্দো সিলভা ও গ্যাব্রিয়েল জেসুস সিটির গোল দুটি করেন।

বারগেমোতে ফারল্যান্ড মেন্ডিকে ফাউল করে ম্যাচের ১৭ মিনিটে লাল কার্ড দেখেন আতালান্তার রেমো ফ্রিউলার। তবে এর ফায়দা তুলতে পারেনি রিয়াল। দশজনে পরিণত হওয়া আতালান্তার পোস্ট লক্ষ্য করে প্রথমার্ধে রিয়াল মাত্র একটি শট নিতে পেরেছে। অবশ্য এর পেছনে স্বাগতিকদেরও ভূমিকা রয়েছে। রেমো লাল কার্ড পাওয়ার পর পুরোপুরি রক্ষণাত্মক হয়ে যায় আতালান্তা। শেষ পর্যন্ত ৮৬ মিনিটে গিয়ে ডেডলক ভাঙেন মেন্ডি। ফরাসি এই ডিফেন্ডার ৩০ গজ দূর থেকে গোলার মতো শটে পার্থক্য গড়ে দেন। তবে গোল পাওয়ার পর রিয়ালের আক্রমণের ধার বেড়ে গিয়েছিল। শেষ মুহূর্তে ক্যাসেমিরোর একটি দূরপাল্লার শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। মিনিট খানেক পর মারিয়ানোর শট অবিশ্বাস্যভাবে ঠেকিয়ে দেন আতালান্তার গোলরক্ষক। অ্যাওয়ে ম্যচে নূ্যনতম ব্যবধানে পাওয়া এ জয়ে পরের লেগে সুবিধাজনক অবস্থায় মাঠে নামবে ১৩ বারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ীরা।

ঘাম ঝরানো এই জয়ে বেশ খুশি রিয়াল বস জিনেদিন জিদান, 'আমাদের জন্য ভীষণ কঠিন একটি ম্যাচ ছিল। তবে শেষ পর্যন্ত ভালো ফলাফলই হয়েছে। যদিও দশজনের বিপক্ষেও আমরা ভালো খেলতে পারিনি। কিন্তু দিন শেষে ফলাফলটাই গুরুত্বপূর্ণ, একটি অ্যাওয়ে গোল পেয়েছি। তবে দ্বিতীয় লেগে আমাদের ভালো খেলে জিততে হবে।' কোনো ইউরোপিয়ান প্রতিযোগিতায় এটাই ছিল মেন্ডির প্রথম গোল। সে আনন্দে আত্মহারা তিনি। কীভাবে গোলটি উদযাপন করবেন, সেটাই নাকি তিনি বুঝতে পারছিলেন না!

বুদাপেস্টে মনশেনগ্লাডবাখকে দাপটের সঙ্গে হারিয়ে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে টানা ১৯ নম্বর জয় তুলে নিয়েছে ম্যানসিটি। কিন্তু তার পরও সন্তুষ্ট নন ম্যানসিটি বস পেপ গার্দিওলা, 'প্রথম লেগ সবসময়ই একটু কঠিন হয়। আমাদের আক্রমণভাগের আরও বেশি ক্লিনিক্যাল হওয়া উচিত ছিল।'

মন্তব্য করুন