পাঁচ শিরোপা জিতে টুর্নামেন্টের সফলতম দল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, আর ১৩ আসরের মধ্যে একবারও চ্যাম্পিয়ন হতে না পারা ব্যর্থ দলগুলোর একটি রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। দুই দলের নেতৃত্বে আবার ভারতীয় ক্রিকেটের প্রধান দুই তারকা রোহিত শর্মা ও বিরাট কোহলি। দলগত সাফল্যে বিপরীত প্রান্তের আর তারকামূল্যে ওজনদার দু'জনের মুখোমুখি লড়াই দিয়ে আজ শুরু হতে যাচ্ছে আইপিএলের ১৪তম আসর। করোনা প্রকোপের মধ্যে সর্বশেষ আসর আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত হলেও প্রায় একই পরিস্থিতিতে এবারের টুর্নামেন্ট আয়োজন করা হচ্ছে ভারতে। খেলোয়াড়, স্টাফ, গ্রাউন্ডসম্যান থেকে শুরু করে আয়োজক কমিটির একাধিক সদস্য করোনায় আক্রান্ত হলেও কঠোর বায়ো-বাবলের মধ্যে আট দলের এই জমজমাট ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট সম্পন্ন করার লক্ষ্য বিসিসিআইর।

= সংক্রমণ ঠেকাতে দুই ভেন্যু

আইপিএলের ম্যাচ সাধারণত হোম-অ্যাওয়ে ভিত্তিতে হয়ে থাকে। তবে সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে এবার একসঙ্গে আট ভেন্যুতে খেলা রাখা হয়নি। এর বদলে একই সময়ে খেলা হবে দুটি ভেন্যুতে। ৯ থেকে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত সব ম্যাচ রাখা হয়েছে মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে এবং চেন্নাইয়ের চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে। এরপর দ্বিতীয় ধাপে ৮ মে পর্যন্ত খেলা হবে দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়াম ও আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে। লিগ পর্বের তৃতীয় ধাপের ম্যাচগুলো হবে কলকাতার ইডেন গার্ডেনস ও বেঙ্গালুরুর চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে। প্রতিটি ভেন্যুতে চারটি করে দল অবস্থান করবে। প্রথম ধাপের খেলায় মুম্বাইয়ে আছে চেন্নাই, দিল্লি, রাজস্থান ও পাঞ্জাব। আর চেন্নাইয়ে আছে মুম্বাই, বেঙ্গালুরু, হায়দরাবাদ ও কলকাতা। কোয়ালিফায়ারসহ ৩০ মের ফাইনাল হবে আহমেদাবাদে।

=সাকিব-মুস্তাফিজদের খেলা কবে

সর্বশেষ আসরে বাংলাদেশের কেউই খেলেননি। তবে এবারের আসরে আছেন দু'জন। এবারের আইপিএলে বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান আছেন কলকাতা নাইট রাইডার্সে, আর মুস্তাফিজুর রহমান আছেন রাজস্থান রয়্যালসে। সাকিবদের প্রথম ম্যাচ রোববার হায়দরাবাদের বিপক্ষে। পরদিন প্রথম ম্যাচ খেলতে নামবে মুস্তাফিজের রাজস্থান। প্রথম দিকের খেলায় দু'জন দুই শহরে। কলকাতা ও রাজস্থান প্রথম মুখোমুখি হবে ২৪ এপ্রিল মুম্বাইয়ে, পরের ম্যাচ ১৮ মে বেঙ্গালুরুতে।

= বিশ্বকাপ প্রস্তুতির মঞ্চ

করোনার কারণে ২০২০ টি২০ বিশ্বকাপ সময়মতো হতে পারেনি। ২০২১ বিশ্বকাপ হওয়ার কথা অক্টোবর-নভেম্বরে, ভারতের মাটিতে। এবারের আইপিএলে তাই টি২০ বিশ্বকাপেরও একটি যোগসূত্র আছে। বিসিসিআই ও আইসিসি দু'পক্ষই বলেছে, বায়ো-বাবলের মধ্যে ১৬টি দেশ নিয়ে বিশ্বকাপ আয়োজনের প্রায়োগিক প্রস্তুতি হয়ে যাবে আইপিএলে। ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপ বলে করোনা ঝুঁকি থাকার পরও এবারের আসরটি খেলতে মুখিয়ে আছেন বিদেশি ক্রিকেটাররা। বাংলাদেশের সাকিব আর ইংল্যান্ডের জনি বেয়ারস্টোর মতো ক্রিকেটাররা আইপিএলে বিশ্বকাপ প্রস্তুতির কথা বলেছেন জোরের সঙ্গেই।

মন্তব্য করুন