বোর্ডের প্রশাসনিক সংকটের কারণে শঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলের তিন অধিনায়ক। তাদের শঙ্কা ছিল, আইসিসির নিষেধাজ্ঞা নেমে আসতে পারে তাদের ওপর। যদিও আইসিসি তাদের আশ্বস্ত করেছে যে, তেমন কিছুর সম্ভাবনা এখন নেই। আইসিসির এই স্বস্তির বিবৃতি আসার আগে দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় দলের তিন অধিনায়ক ডিন এলগার (পুরুষ টেস্ট দল), টেম্বা বাভুমা (পুরুষ টি২০ ও ওয়ানডে) এবং ডানে ফন নিকার্ক (নারী দল) শঙ্কা প্রকাশ করে এক যৌথ বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছিলেন।

আইসিসি বিবৃতি দিয়ে জানায়, 'চলমান সংকটপূর্ণ ইস্যুগুলো সমাধানের জন্য সরকারের সঙ্গে কাজ করতে ক্রিকেট বোর্ডের সদস্যদের উৎসাহিত করছে আইসিসি। আর সরকারের কিছু কিছু হস্তক্ষেপ কিন্তু সমস্যা সৃষ্টি করে না। তবে আমাদের সদস্যদের কাজে ব্যাঘাত ঘটলে এবং আনুষ্ঠানিক অভিযোগ এলে অবশ্যই আইসিসি বিষয়টি দেখবে। যদি তেমন কিছু ঘটে তবে অবশ্যই আমরা পরিস্থিতির মূল্যায়ন করব এবং প্রয়োজন অনুযায়ী পদক্ষেপ নেব।' আইসিসির একজন কর্তা জানিয়েছেন, দক্ষিণ আফ্রিকার পরিস্থিতি আসলে হস্তক্ষেপ করার মতো এতটা খারাপ হয়নি। তিনি বলেন, 'আইসিসি এখনি প্যানিক বোতাম টিপে সবকিছু অস্থির করে তুলতে চায় না। আমরা চাই তারা যেন নিজেরাই নিজেদের সমস্যা সমাধান করুক।' সরকারের সঙ্গে টানাপোড়েনে দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ডের পুরোনো সংকট নতুন করে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছিল। যে কারণে ভারতে অনুষ্ঠেয় টি২০ বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ নিয়েও শঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন ক্রিকেটাররা। সবার প্রত্যাশা ছিল, গত শনিবার বিশেষ জেনারেল মিটিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ডের (সিএসএ) মেম্বার্স কাউন্সিল এবং অন্তর্বর্তী বোর্ডের মধ্যে অচলাবস্থার নিরসন ঘটবে। তবে বোর্ডে সংস্কারের বিষয়ে গোপন ব্যালটে ভোটের প্রস্তাব মেম্বার্স কাউন্সিল মেনে না নিলে সংকট আরও ঘনীভূত হয়। ১৮ মাস ধরে চলা এই সংকট নিরসনে ক্রীড়ামন্ত্রী উদ্যোগ নেওয়ার আগ্রহও প্রকাশ করেছেন। আইসিসির আশা, এতে করে সংকট সমাধান হবে।

মন্তব্য করুন