বাংলাদেশ দল শ্রীলঙ্কায় প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছে নিজেদের মধ্যে। ম্যাচটি সাত দিনের কোয়ারেন্টাইনে হওয়ায় সাপোর্ট স্টাফ এবং একজন ক্রিকেটারও দেয়নি লঙ্কান বোর্ড। বাংলাদেশ সফরে শ্রীলঙ্কাও একটি ৫০ ওভারের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বিকেএসপিতে। ২১ মের সে প্রস্তুতি ম্যাচের প্রতিপক্ষ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে ক্রিকেট মহলে। ঘোষিত সূচিতে প্রস্তুতি ম্যাচের দল নিয়ে কিছু বলা নেই। এ নিয়ে বিসিবি ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সঠিক তথ্য দিতে পারেননি। তিনি বলেছেন, শ্রীলঙ্কা চাইলে বিসিবি থেকে ক্রিকেটার দেওয়া হবে প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য। কিন্তু আকরাম খান জানেন না, কোয়ারেন্টাইনকালে স্বাগতিক ক্রিকেটারও নিতে পারবে না শ্রীলঙ্কা। গতকাল এ বিষয়টি পরিস্কার করেন বিসিবি সিইও নিজামউদ্দিন চৌধুরী। তিনি জানান, কোয়ারেন্টাইনের ভেতরে হওয়ায় প্রস্তুতি ম্যাচটি খেলবে নিজেরা দুই দলে ভাগ হয়ে।

করোনাকালে কোয়ারেন্টাইন একেক দেশে একেক রকম। নিউজিল্যান্ডে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন করতে হলেও শ্রীলঙ্কায় সেটি সাত দিনের। বাংলাদেশও সাত দিনের কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম রেখেছে বিদেশি দলগুলোর জন্য। জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ খেলে যাওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল সাত দিন কোয়ারেন্টাইন করেছে। যেখানে প্রথম তিন দিন আইসোলেশনে থাকতে হয় বিদেশি ক্রিকেটারদের। এই সময়ের ভেতরে দু'বার কভিড টেস্টে নেগেটিভ হলে চতুর্থ দিন থেকে নিজেরা অনুশীলন করার সুযোগ পায়। ১৬ মে ঢাকায় পৌঁছে লঙ্কানরাও একই সুবিধা ভোগ করবে। চার দিন সম্পূর্ণ নিজেদের মধ্যে হবে এই অনুশীলন। অষ্টম দিন থেকে স্বাগতিক ক্রিকেটার এবং সাপোর্ট স্টাফ নিতে পারবে তারা। তবে শ্রীলঙ্কা দল এক্ষেত্রে বাড়তি কিছু সুবিধা পেতে পারে। বিসিবি সিইও নিজামউদ্দিন বিষয়টি পরিস্কার করেছেন গতকাল। তিনি বলেন, 'শ্রীলঙ্কাকে প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য কোনো ক্রিকেটার দেওয়ার সুযোগ নেই। তবে তারা চাইলে সাপোর্ট স্টাফ দেওয়া হবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজকেও এই সুবিধা দেওয়া হয়েছিল।'

মন্তব্য করুন