প্রতিপক্ষ র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দক্ষিণ কোরিয়া। কিন্তু তীর-ধনুকের লড়াই বলে র‌্যাঙ্কিং নিয়ে মাথা ঘামাননি বাংলাদেশের দুই আরচার রোমান সানা ও দিয়া সিদ্দিকী। অলিম্পিকের মঞ্চে যে কোনো কিছু করার প্রত্যাশায় মিশ্র দলগত ইভেন্টে খেলতে নামা রোমান ও দিয়া জুটি ভালোই লড়াই করেন কোরিয়ান দুই তীরন্দাজ অ্যান সান ও কিম জে দিওকের বিপক্ষে। প্রথম দুই সেটে খুব একটা প্রতিরোধ গড়তে না পারলেও তৃতীয় সেটে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর পেরে ওঠেনি। গতকাল টোকিওতে অনুষ্ঠিত আরচারির মিশ্র দলগত ইভেন্টের শেষ ষোলোতে কোরিয়ার কাছে ৬-০ সেট পয়েন্টে হেরে বিদায় নেয় রোমান-দিয়ার বাংলাদেশ। এখন ২৭ জুলাই রিকার্ভ পুরুষ ও নারী এককের প্রথম রাউন্ডে খেলবেন রোমান ও দিয়া। বাংলাদেশ যে আরচারির সেরা জুটির কাছে হেরেছে, তা প্রমাণিত হয়েছে শনিবারই। রোমান ও দিয়াকে হারানো দক্ষিণ কোরিয়ার দুই আরচার অ্যান সান ও কিম জে দিওক জিতেছেন স্বর্ণ। ৫-৩ সেট পয়েন্টে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে সোনার পদক জেতে কোরিয়া।

টোকিও ইউমেনোস হিমাপার্ক আরচারি মাঠে প্রথম সেটে কোরিয়ার বিপক্ষে কোনো প্রতিরোধই গড়তে পারেনি বাংলাদেশ। কোরিয়ার দুই আরচার যেখানে স্কোর করে ৩৮, সেখানে বাংলাদেশ করে ৩০। প্রথম সেটের প্রথম তীরটা বাংলাদেশের স্কোরবোর্ডে এনে দেয় ৮ পয়েন্ট। পরের তীরটা এনে দিতে পারল মাত্র পাঁচ। এখানেই পিছিয়ে পড়েছিল বাংলাদেশ। আর খেলায় ফিরতে পারেনি তারা। পরের দুই তীরে যথাক্রমে ৯ আর ৮ আসে। জবাবে চার তীরে দক্ষিণ কোরিয়ার দুই আরচার অ্যান সান ও কিম জে দিওক তুললেন ৩৮। দ্বিতীয় সেটে কোরিয়া এগিয়ে থাকে ৩৫-৩৩ স্কোরে। এই সেটেই গ গোল বাধায় দ্বিতীয় তীরটাই। এই তীর থেকে এলো ছয়, ফলে বাকি তীর থেকে ২৭ তুলে নিলেও মোট স্কোর দাঁড়ায় ৩৩। দক্ষিণ কোরিয়াও এই সেটেই যেন ছিল একটু নড়বড়ে। চার তীর থেকে যথাক্রমে ৯, ৯, ৮ আর ৯ তুলেছিল। তবে সেটাই জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিল কোরিয়ানদের জন্য, ৩৫ পয়েন্ট তুলে দ্বিতীয় সেটের দুই পয়েন্টও জিতে নেয় দলটি। তবে শেষ সেটে দুর্দান্ত লড়ে বাংলাদেশ। চার তীরে তুলেছে যথাক্রমে ৯, ১০, ৯ ও ১০; তাতে মোট স্কোর গিয়ে দাঁড়িয়েছিল ৩৯-এ। তবে দক্ষিণ কোরিয়াও লড়াইয়ে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়নি। তিনটি ১০ সহ চার তীর থেকে সংগ্রহ করে ৩৯ পয়েন্ট।

ভালো খেলেও শক্তিশালী প্রতিপক্ষের কাছে হারে অবাক নন জার্মান কোচ মার্টিন ফ্রেডরিক। তার কাছে মনে হয়েছে, শুরুতে স্নায়ুর চাপ অনুভব করেছেন রোমান ও দিয়া, 'অলিম্পিকের নক আউট পর্ব, কোরিয়ার মতো একটা দল, এই জন্য তারা (রোমান ও দিয়া) নার্ভাস ছিল। এরপর প্রতি সেটে তারা উন্নতি করেছে। শেষ ষোলোতে খেলার যে লক্ষ্য ছিল আমাদের, সেটা পূরণ হয়েছে।'

মন্তব্য করুন