১৪ বছর মাইক অ্যাশলির মালিকানায় থাকা নিউক্যাসল ইউনাইটেড কিনে নিয়েছে সৌদি মালিকানাধীন কনসোর্টিয়াম সৌদি পাবলিক ইনভেস্ট ফান্ড (পিআইএফ), যে প্রতিষ্ঠানের তহবিলের প্রধান সৌদি যুবরাজ প্রিন্স বিন সালমান। রেকর্ড ৩০ কোটি পাউন্ডে নিউক্যাসলের মালিক বনে যাওয়া সৌদি যুবরাজের এবার টার্গেট সিরি-এ লিগের ক্লাব ইন্টার ও লিগ ওয়ানের মার্সেই কেনা।

সম্প্রতি ইতালিয়ান দৈনিক লিভেরো এমন খবরই প্রকাশ করেছে। আর্থিক সংকটের কারণে ইন্টার আগের জৌলুস হারাতে বসেছে। তারকা খেলোয়াড়রাও মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। গত ট্রান্সফারে ইন্টার থেকে চলে যান রোমেলু লুকাকু ও আশরাফ হাকিমি। তাই নতুন মালিকানায় গেলে ক্লাবটি প্রাণ ফিরে পাবে বলে ফুটবলবোদ্ধাদের ধারণা। এমন পরিস্থিতিতে মাঠে নেমেছে পিআইএফ। ইতালিয়ান সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, গত সেপ্টেম্বরে ইন্টার-রিয়াল মাদ্রিদ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ম্যাচ চলাকালে এ নিয়ে দু'পক্ষের কথাবার্তাও হয়েছিল।

তবে নিউক্যাসলের মালিকানায় আরও দুই সৌদি প্রতিষ্ঠান পিসিপি ক্যাপিটাল পার্টনার্স এবং আরবি স্পোর্টস মিডিয়ার নাম রয়েছে। যেখানে সবচেয়ে বেশি ৮০ ভাগ মালিকানা পিআইএফের। যদিও ক্লাবটির মালিকানা সৌদির হাতে গেলে সমস্যা হতে পারে বলে সতর্ক করেছিল আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। তাদের দাবি, সৌদি রাজতন্ত্রের প্রভাব এখানে ভালোভাবে পড়বে। আর অতীতে তারা যেসব মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো কাজগুলো করেছিল, এই ক্লাবকে দিয়ে সেসব ধামাচাপা দিতে চাইবে। সেজন্য অ্যামনেস্টি বেশ উদ্বেগও প্রকাশ করে। প্রিমিয়ার লিগের পক্ষ থেকে সে সময় এর ব্যাখ্যাও দেওয়া হয়, 'সৌদি রাজতন্ত্র এটা নিয়ন্ত্রণ করবে না। সে বিষয়ে আইনগত প্রতিশ্রুতিও পেয়েছে তারা।'

মন্তব্য করুন