রাসেল মাহমুদ জিমির নিষেধাজ্ঞা এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বাতিল করার জন্য বুধবার ফেডারেশনে আবেদন করে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব। কিন্তু সাদা-কালো জার্সিধারীদের পুনর্বিবেচনার আবেদনে সাড়া দেয়নি বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন। তাতেই বেঁকে বসে মোহামেডান। শাস্তি প্রত্যাহার না করায় বর্জন করেছে চলমান ক্লাব কাপ হকি। শাস্তির প্রতিবাদে গতকাল টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল খেলতে আসেনি মতিঝিলপাড়ার ক্লাবটি। মোহামেডান মাঠে না আসায় ওয়াকওভার পেয়ে ফাইনালে পৌঁছে যায় মেরিনার ইয়াংস ক্লাব। আগামীকাল মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে ফাইনালে আবাহনী লিমিটেডের মুখোমুখি হবে মেরিনার্স। বৃহস্পতিবার প্রথম সেমিফাইনালে সোনালী ব্যাংককে ৬-২ গোলে হারিয়েছে আবাহনী।

মোহামেডানের ক্লাব কাপ বর্জনে ঘরোয়া হকিতে আবারও আঁধার দেখা যাচ্ছে। শাস্তি প্রত্যাহার না করায় মোহামেডানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র দেখছেন দলটির হকি ম্যানেজার আরিফুল হক প্রিন্স। সঙ্গে প্রিমিয়ার লিগ বর্জনেরও হুমকি দিয়ে রাখলেন তিনি, 'বুধবার সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করার জন্য আবেদন করেছিলাম ফেডারেশনে; কিন্তু তারা তা করেনি। ১০ ম্যাচ নিষিদ্ধ হওয়া আম্পায়ার সানিকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে কীভাবে জিমিকে শাস্তি দেওয়া হলো বুঝলাম না। আসলে মোহামেডানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। তাই আমরা ক্লাব কাপ বর্জন করেছি এবং প্রিমিয়ার লিগে না খেলার সম্ভাবনাও রয়েছে।' তার এমন হুমকিতে প্রিমিয়ার হকি নিয়ে দেখা দিয়েছে শঙ্কা। কারণ ২০১৮ সালে মোহামেডান ও মেরিনার্সের মধ্যকার লিগের শেষ ম্যাচে গোলযোগ হলে খেলা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। পরে মোহামেডানকে চ্যাম্পিয়ন, ঢাকা আবাহনীকে রানার্সআপ ও মেরিনার্সকে তৃতীয় স্থান ঘোষণা দেয় হকি ফেডারেশন। এরপর তিনটি বছর কেটে যায়। ঘরোয়া হকিতে আলোর মুখ দেখেনি। নতুন করে আবার হকি শুরু হওয়ায় নীল টার্ফে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। ১২টি দল দলবদল করেছে। বিদেশিরাও এসেছেন বিভিন্ন ক্লাবের হয়ে খেলতে। কিন্তু ১১ অক্টোবর পুলিশের বিপক্ষে ম্যাচে আম্পায়ার ইমতিয়াজ সুলতান সানিকে লাঞ্ছিতের অভিযোগে মোহামেডান অধিনায়ক জিমিকে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ করা এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করায় নতুন করে হকিতে দেখা দিয়েছে অশনিসংকেত।\হসেই ম্যাচের টেম্পারমেন্ট রাখতে না পারায় লিগ কমিটি আম্পায়ার বোর্ডকে বলেছে যেন সানিকে কমপক্ষে ১০ ম্যাচের জন্য সাসপেন্ড করা হয়। দশ ম্যাচ নিষিদ্ধ হওয়া আম্পায়ারকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে জিমিকে যে শাস্তি দিয়েছে, তা মানতে পারছেন না মোহামেডান। তবে ফেডারেশনের কথা, শুধু আম্পায়ার সানিকেই শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেননি জিমি, পুলিশ স্পোর্টিং ক্লাবের গোলরক্ষক কাঞ্চন মিয়াকে ধাক্কা দেন এবং গলা চেপে ধরেন ডিফেন্ডার শাওনকে। তর্কে জড়িয়েছেন পুলিশ হকি দলের ম্যানেজার ও কর্মকর্তা রাকিব হোসেনের সঙ্গে। এ প্রসঙ্গে ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ বলেন, 'মোহামেডান খেলতে না চাইলে তো কিছু করার নেই আমাদের। সেমিফাইনাল ম্যাচ খেলেনি। ওয়াকওভার পেয়ে ফাইনালে উঠে গেছে মেরিনার্স।'

মন্তব্য করুন