ব্যাপারটি প্রথমে নজরে এনেছিলেন ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে। টি২০ বিশ্বকাপে ভারতকে হারানোর পর পাকিস্তানের একটি টেলিভিশন চ্যানেলের টক শোতে স্বভাবতই ওয়াকার ইউনিস নিজের উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। ওই ম্যাচে রিজওয়ানের পারফরম্যান্স বিশ্নেষণ করতে গিয়ে আপত্তিকর একটি মন্তব্য করে বসেন পাকিস্তানের সাবেক ওই অধিনায়ক। 'ম্যাচে সবচেয়ে ভালো ব্যাপার যেটা রিজওয়ান করেছে, সে হিন্দুদের সামনে দাঁড়িয়ে মাঠে নামাজ পড়েছে- সেটা ছিল সত্যিই স্পেশাল কিছু।' ওই অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি লাইভে ছিলেন শোয়েব আকতারও। ওয়াকারের ওই মন্তব্যের সময় বিব্রত হতে দেখা যায় শোয়েব আকতারকে। পাকিস্তানের এআরওয়াই চ্যানেলের টক শোতে ওয়াকারের ওই মন্তব্য ইউটিউবে ভাইরাল হয়ে যায়। যা নিয়ে টুইটারে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেন হার্শা ভোগলে, 'আমি জানি, পাকিস্তানের অগণিত সমর্থক আমার সঙ্গে একইভাবে হতাশ হবেন ওয়াকারের বিপজ্জনক মন্তব্যটি শুনে। ক্রিকেটাররা এই খেলাটির দূত, তাদের আরও দায়িত্বসম্পন্ন হওয়া উচিত। আমি নিশ্চিত, এরপর ওয়াকারের পক্ষ থেকে ক্ষমা চেয়ে কোনো বিবৃতি দেওয়া হবে। আমাদের ক্রিকেটবিশ্বে এক হয়ে থাকতে হবে, ধর্ম দিয়ে তা আলাদা করা যাবে না।' হার্শা ভোগলের মতো ভারতীয় ক্রিকেটার ওয়াসিম জাফরও টুইট করে ওয়াকারের সমালোচনা করেছেন। তিনি লিখেছেন, 'জঘন্য মন্তব্য করেছেন ওয়াকার।' চারপাশ থেকে তীব্র সমালোচনার পর অবশেষে গতকাল টুইটারে তার ওই মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন ওয়াকার ইউনিস। টুইটারে লিখেছেন, 'হিট অব দ্য মোমেন্টে আমি যা বলে ফেলেছি, সেটি সত্যিই আমি বোঝাতে চাইনি। আমার মন্তব্যটি অনেককে আঘাত করেছে, তার জন্য আমি ক্ষমাপ্রার্থী। সত্যিকার অর্থেই একটি ভুল করে ফেলেছি আমি। খেলাধুলা মানুষের ঐক্য তৈরি করে, ধর্ম-বর্ণ দিয়ে তা কখনোই বিভেদ করা উচিত নয়।'

মন্তব্য করুন