দিনের প্রথম ম্যাচে উত্তর বারিধারা ১-১ গোলে ড্র করে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর সঙ্গে। তাতে মাঠে নামার আগেই কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে শেখ জামাল। তবে শঙ্কাটা ছিল নকআউটে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন্স বসুন্ধরা কিংসের মুখে পড়ার। সে শঙ্কাই সত্যি হলো। কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে রোববার শেখ রাসেলের বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করে শেখ জামাল। যে কারণে শেষ আটে প্রতিপক্ষ হিসেবে বসুন্ধরা কিংসকেই পেল শেখ জামাল। অন্যদিকে ড্র করে এক পয়েন্ট নেওয়ায় সামনের পথটা অনেকখানি সহজ হয়ে গেল শেখ রাসেলের জন্য। ৩ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে 'বি' গ্রুপের একে তারা। প্রথমার্ধে দু'দলই আপ্রাণ চেষ্টা করে গোল করার। ম্যাচের ২৬তম মিনিটে দারুণ সুযোগ পেয়ে কাজেও লাগান শেখ জামালের শাহিন মিয়া। মাঝমাঠ থেকে ওয়াহেদ খানের বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এগিয়ে যান সামনের দিকে। সহজেই ভাঙেন প্রতিপক্ষের রক্ষণ।

এরপর বাঁকানো শটে পরাস্ত করেন শেখ রাসেলের গোলকিপার আশরাফুল ইসলাম রানাকে। লিড বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি শেখ জামাল। দুই মিনিট পরই সমতায় ফেরে ২০১২-১৩ মৌসুমে ঘরোয়া ট্রেবল জেতা শেখ রাসেল। মাঝমাঠ থেকে আক্রমণ শানান ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড মাচানো রোজা। তার অ্যাসিস্ট পেয়ে শেখ জামালের জালের বল জড়ান পর্তুগালের স্ট্রাইকার রুতি তাবারেজ। অল্প সময়ে দু'দলের এমন এগিয়ে যাওয়া আবার সমতায় ফেরার পরের অংশটা ছিল ভিন্ন। স্কোর বাড়ানোর লড়াইয়ে উনিশ-বিশ আক্রমণ চালিয়েও জালের দেখা আর পায়নি কেউ। যার ফলে কোয়ার্টারে কোনো হিসাব ছাড়াই বসুন্ধরা কিংসকে পেল শেখ জামাল। আগের ম্যাচে ড্র করায় বারিধারা ও বিমানবাহিনীর আশা তখনই শেষ হয়ে যায়। যেখানে বারিধারার হয়ে গোল করেন কোনেভ আর বিমানবাহিনীর হয়ে জুয়েল মিয়া।

মন্তব্য করুন