শেষ বয়সে হলেও একটি ভাতা কার্ড চান রাহেলা বেগম

প্রকাশ: ০৯ জুলাই ২০১৭

ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি

ওসমানীনগরের সাদীপুর ইউনিয়নের সুরিকোণা গ্রামের রাহেলা বেগমের বয়স এখন ৮০। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় হানাদাররা তার স্বামী মহিম উদ্দিনকে হত্যা করে। স্বামীকে হারিয়ে সন্তানদের নিয়ে অভাব-অনটনে দিন কাটলেও তার ভাগ্যের কোনো পরিবর্তন হয়নি। একদিকে বয়স্ক অন্যদিকে বিধবা হলেও কোনো ধরনের ভাতার কার্ড জোটেনি তার ভাগ্যে। জীবনের শেষ বয়েসে হলেও একটি ভাতার কার্ড চান তিনি।
রাহেলা বেগম জানান, স্বামী হারানোর পর থেকে ৫ ছেলে ও ২ মেয়েকে নিয়ে চরম কষ্টে জীবনযাপন করে আসছেন। চোখের রোগসহ বিভিন্ন রোগে ভুগলেও টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না।
রাহেলা বেগমের ছেলে মজনু মিয়া বলেন, আমার ছেলেমেয়ে ও মা'সহ ৬ জনের সংসারে অভাব নিত্যসঙ্গী। মাটি কাটার কাজ করে ভাত খাই; কিন্তু সবসময় কাজ থাকে না। রমজানের আগ থেকে বন্যা কবলিত অবস্থায় রয়েছি। কোনো কাজকর্মও নাই। মা চোখে দেখেন না। কিন্তু টাকার অভাবে চিকিৎসা করাতে পারি না।
সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার সোনা মিয়া গাজী বলেন, কিছুদিন আগে অপেক্ষমান তালিকায় রাহেলা বেগমের নাম দিয়েছি।
সাদীপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. আবদুর রব বলেন, নতুন করে বরাদ্দ না পাওয়ায় রাহেলা বেগমের নামে কার্ড দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।