ধ্বংসের পথে আবদুল হেকিম স্মৃতিসৌধ

৩ বছরেও হয়নি উদ্বোধন

প্রকাশ: ২০ আগস্ট ২০১৭      

ধর্মপাশা (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি

স্মৃতিসৌধটি নির্মাণের কয়েক মাস পরেই একদিকে হেলে পড়ে এবং এতে ফাটল ধরে। ফলে এটি ধসে পড়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। খবর পেয়ে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের লোকজন এটিকে সংস্কার করে দিয়ে যায়। নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার করার কারণেই এতে ত্রুটি দেখা দিয়েছিল বলে দাবি এলাকাবাসীর। এখন পর্যন্ত এর উদ্বোধন করা হয়নি। ফলে এতে নামফলকও বসানো হয়নি। একটি স্তম্ভের ওপর স্থাপিত এ স্মৃতিসৌধের উপরিভাগে মুষ্টিবদ্ধ হাতে ধরে রাখা ধাতব পদার্থে নির্মিত জাতীয় পতাকাটিও এখন নেই। কর্তৃপক্ষের দাবি, স্মৃতিসৌধটি অরক্ষিত থাকায় কেউ হয়তো পতাকাটি খুলে নিয়ে গেছে। এ স্মৃতিসৌধের অবস্থান ধর্মপাশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স রোডস্থ জিরো পয়েন্টে।
জানা যায়, সুনামগঞ্জ-১ আসনের সাবেক এমপি প্রয়াত আবদুুল হেকিম চৌধুরীর স্মৃতি স্মরণে ধর্মপাশা উপজেলার জিরো পয়েন্টে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণের জন্য জেলা পরিষদ ২০১২-১৩ অর্থবছরে ৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়। দরপত্রে অংশগ্রহণ করে এটি নির্মাণের কাজ পায় মেসার্স কানন এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের লোকজন ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসে এর নির্মাণ কাজ শুরু করে পরের বছর জানুয়ারি মাসে কাজ সম্পন্ন দেখিয়ে বিদায় নেয়। ওই বছরের মে মাসের প্রথম সপ্তাহে স্মৃতিসৌধের উত্তর অংশে ফাটল ধরে। ফলে এটি একদিকে হেলে গিয়ে ধসে পড়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। খবর পেয়ে ঠিকাদারের লোকজন এটিকে সংস্কার করে দিয়ে যায়। তখন স্মৃতিসৌধের উপরিভাগের কিছুটা পরিবর্তন করা হয়। অর্ধমুষ্টিবদ্ধ হাতকে পুরোপুরি মুষ্টিবদ্ধ করে দেওয়া হয়। এ ছাড়া হাতের আকৃতিও কিছুটা বৃদ্ধি করা হয়। দীর্ঘ তিন বছরে বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত স্মৃতিসৌধটি আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন না করা প্রয়াত আবদুুল হেকিম চৌধুরীকে অবমাননার শামিল বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।
প্রয়াত আবদুুল হেকিম চৌধুরীর ছেলে ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, 'স্মৃতিসৌধ নির্মাণের সময় ৪০ হাজার টাকায় মাটি ভরাট করে দিয়েছিলাম সেখানে। ঠিকাদার সে টাকা ফেরত না দিয়েই চলে যায়। আর কাজটিও যেনতেনভাবে করা হয়েছিল। ফলে এটি একবার হেলে পড়েছিল। স্মৃতিসৌধটি সংস্কার করে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করার জন্য আমাদের পরিবার ও এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।'
স্মৃতিসৌধ নির্মাণ কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের সঙ্গে এ ব্যাপারে কোনোভাবেই যোগাযোগ করা যায়নি। তবে সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ কার্যালয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী সূর্য্য সেন রায় বলেন, 'স্মৃতিসৌধের কাজ সম্পন্ন হয়েছিল। এটি অরক্ষিত থাকায় কেউ হয়তো পতাকাটি খুলে নিয়ে গেছে। উদ্বোধন না হওয়ায় নামফলক বসানো হয়নি। স্মৃতিসৌধটির যদি এমন অবস্থা হয়ে থাকে তাহলে তা সংস্কার করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।'
জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট বলেন, 'বিষয়টি আমাকে কেউ জানায়নি। যদি এমনটি হয়ে থাকে তাহলে সংস্কার করে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন ও রক্ষণাবেক্ষণে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'

পরবর্তী খবর পড়ুন : সংবাদ সংক্ষেপ

আ.লীগের ইশতেহার ঘোষণা মঙ্গলবার

আ.লীগের ইশতেহার ঘোষণা মঙ্গলবার

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে অাগমী মঙ্গলবার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা ...

যে গ্রামে দরজা নেই কোন ঘরের

যে গ্রামে দরজা নেই কোন ঘরের

ঘরে জিনিসপত্র, টাকা-পয়সা, গহনাগাটি নিরাপদ রাখতে মানুষ কত কিছুই না ...

আওয়ামী লীগে কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই: নানক

আওয়ামী লীগে কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী নেই: নানক

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, আওয়ামী ...

হোর্হে সাম্পাওলি সান্তোসের কোচ

হোর্হে সাম্পাওলি সান্তোসের কোচ

রাশিয়ার কাজান এরিনা কাঁদিয়ে ছেড়েছে হোর্হে সাম্পাওলিকে। তার কোচিং ক্যারিয়ারের ...

ড. কামাল সাংবাদিকদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেছেন: আ’ লীগ

ড. কামাল সাংবাদিকদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেছেন: আ’ লীগ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, জাতীয় ...

মাঠে শেষ দিন পর্যন্ত থাকবো: ফখরুল

মাঠে শেষ দিন পর্যন্ত থাকবো: ফখরুল

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন উল্লেখ ...

'১৫-১৬ জনের বিশ্বকাপ দল তৈরি আছে'

'১৫-১৬ জনের বিশ্বকাপ দল তৈরি আছে'

কয়েক দিন ধরে বাতাসে একই গুঞ্জন। মাশরাফি কি মিরপুরে শেষ ...

ড. কামাল বেপরোয়া ড্রাইভারের মতো আচরণ করছেন: কাদের

ড. কামাল বেপরোয়া ড্রাইভারের মতো আচরণ করছেন: কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল ...