জোড়া খুনের মামলায় চাচাতো ভাইয়ের মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশ: ১৯ জুলাই ২০১৯

সিলেট ব্যুরো

সিলেটের গোলাপগঞ্জে জোড়া খুনের মামলায় চাচাতো ভাইয়ের ফাঁসি এবং আপন ভাইয়ের তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত কামরুল ইসলাম গোলাপগঞ্জ উপজেলার মেহেরপুর গ্রামের ফারুক আহমদের ছেলে। তিন বছরের সাজাপ্রাপ্ত ছানু মিয়া একই গ্রামের মুহিবুর রহমানের ছেলে। এই মামলার অপর দুই আসামি মনোয়ারা বেগম ও আয়েশা আক্তারকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আমিনুল ইসলাম এই রায় প্রদান করেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, ২০১৫ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি মেহেরপুর গ্রামে পূর্বশত্রুতার জেরে মুহিবুর রহমানের ছেলে রুবেল আহমদ ও ছানু মিয়ার ওপর হামলা চালায় আসামিরা। গুরুতর আহত রুবেল ও ছানু সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ ঘটনায় নিহতদের বোন নাজিরা বেগম বাদী হয়ে গোলাপগঞ্জ থানায় দুই নারীসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। ২০১৫ সালের ২০ জুন পুলিশ তদন্ত শেষে চার আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।

সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালতের অ্যাডিশনাল পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন জানান, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কামরুল নিহত রুবেল ও ছানুর চাচাতো ভাই। তাকে ফাঁসির পাশাপাশি ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়া তিন বছরের সাজাপ্রাপ্ত রানু ইতিমধ্যে সাজার বেশি সময় কারাগারে থাকায় তাকে মুক্তি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।