চুনারুঘাটে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

প্রকাশ: ২১ অক্টোবর ২০১৯      

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে মাদক ব্যবসায়ী ও বহু অপকর্মের হোতা দুলাল আহমেদ দুলনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে আহাম্মদাবাদ ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রামের মৃত মশ্ব উল্লার ছেলে। এ সময় তার কাছ থেকে একটি চাপাতি ও তিনটি গরু উদ্ধার করা হয়। রোববার ভোরে চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হকের নেতৃত্বে এসআই শহিদুল ইসলামসহ এক দল পুলিশ উপজেলার আমুরোড বাজারে নিজ বাসা থেকে দুলনকে আটক করে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুলনের বিরুদ্ধে একাধিক মাদক মামলা, লুটপাট ও গরু চুরির মামলা রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সে মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকাভুক্ত আসামি। ২০১৮ সালে দুলন তার ভাই সাবেক চেয়ারম্যান আবদুল লতিবকে প্রকাশ্যে দা দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছিল। একই বছর আমুরোড বাজারে দিনমজুর গনিকে পিটিয়ে এলাকাছাড়া করে। আমুরোড বাজারের বাসিন্দা এমরান আহমদের বাসায় হামলা করে তাকে কুপিয়ে আহত করে। এ নিয়ে দুলনের বিরুদ্ধে থানা ও কোর্টে ৬টি মামলা রয়েছে। কালামণ্ডল গ্রামের মফিলা নামে এক মহিলাকে প্রকাশ্যে পিটিয়ে আহত করায় দুলনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা করেছেন ওই মহিলা। মামলাগুলো বিচারাধীন। চলতি বছরের ১৫ এপ্রিল চিমটিবিল খাস গ্রামের ওয়াহিদ মিয়ার বসতঘরে হামলা চালিয়ে বিপুল মালপত্র লুট করে দুলন। মামলাটি হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশ তদন্ত করছে। ২০১৯ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর বাল্লা বিজিবির হাতে ২শ' বস্তা চোরাই চা-পাতা আটক হলে দুলন প্রকাশ্যে হামলা চালিয়ে ৩০ বস্তা চা-পাতা লুট করে নিয়ে যায়। একই বছর সুন্দরপুর গ্রামের আজিজকে মারধর করে টাকা ছিনতাইয়ে মামলা হয় তার বিরুদ্ধে।

২০১৮ সালের ১৬ ডিসেম্বর আহাম্মদাবাদ ইমাম সমিতির এক অনুষ্ঠানে চড়াও হয়ে এক সাংবাদিককের ওপর চাপাতি নিয়ে হামলা করে সে। সর্বশেষ গত ১৫ অক্টোবর চিমটিবিল খাস গ্রামের সুলেমান মিয়ার ঘর থেকে ৬টি গরু ছিনতাই করে নিয়ে যায় দুলন। তার বাহিনীর লোকজন এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে বলে জানায় পুলিশ। ২০১৮ সালের ২৭ নভেম্বর দুলনকে ৫০ কেজি গাঁজাসহ আটক করেছিল হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশ। দুলনকে গ্রেপ্তারের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সাধারণ মানুষ উল্লাসে ফেটে পড়ে।