হবিগঞ্জে শীতজনিত রোগে হাসপাতালে ২৫ শিশু

প্রকাশ: ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

ধীরে ধীরে বাড়তে শুরু করেছে ঠান্ডার প্রকোপ। শীতের তীব্রতা বৃদ্ধির সঙ্গে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে ঠান্ডাজনিত রোগীর সংখ্যা। তবে বয়স্কদের তুলনায় শিশু রোগীর সংখ্যাই বেশি। নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্টসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে গত শনি ও রোববার নতুন করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে প্রায় ২৫ জন শিশু। এ ছাড়াও পুরেনো ভর্তি রয়েছে অন্তত ৪০ শিশু। এ অবস্থায় শিশুদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে নার্স ও কর্তব্যরত ডাক্তারদের।

রোববার বিকেলে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, শিশুদের জন্য যে কয়টি শয্যা বরাদ্দ, তার প্রায় দ্বিগুণ রোগী ভর্তি রয়েছে। শয্যা না পেয়ে অনেকে রোগী নিয়ে হাসপাতালের মেঝেতেই আশ্রয় নিয়েছেন। অভিভাবকরা বলছেন, ধারণ ক্ষমতার চেয়ে রোগীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় সঠিক সময়ে চিকিৎসা দিতে পারছেন না নার্সরা।

এদিকে, শিশু ওয়ার্ড ছাড়াও হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ঠান্ডাজনিত রোগের চিকিৎসা নিতে রোগীদের প্রচুর ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। ঠান্ডা-জ্বর, সর্দি-কাশি, টনসিল, শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত অনেককে প্রাথমিক চিকিৎসা নিতে দেখা গেছে। চিকিৎসকদের মতে, তাপমাত্রা হঠাৎ পরিবর্তনের ফলে খাপ খাওয়াতে পারছে না শিশুসহ অনেক মানুষ। তাই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বানিয়াচং উপজেলার বড়ইউড়ি গ্রামের শাকির ইসলামের স্ত্রী সুমা আক্তার জানান, তার শিশুকন্যাকে নিয়ে তিনি দুপুরে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। হঠাৎ তার মেয়ে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হলে গ্রামের ডাক্তারের মাধ্যমে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তিনি হাসপাতালে এসেছেন।

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের ডাক্তার মিঠুন রায় জানান, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে শিশুরা বেশি করে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বিশেষ করে দিনে গরম, রাতে ঠান্ডা, শুস্ক আবহাওয়ায় ধুলোবালি বেড়ে যাওয়ায় নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া ও শ্বাসকষ্ট এড়াতে অভিভাবকদের বেশি করে সতর্ক থাকতে হবে। হাসপাতালে আগত শিশুদের সাধ্যমতো চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।