ইউএনওর সই ছাড়াই চাকরি

ইসলামিক ফাউন্ডেশন

প্রকাশ: ২২ নভেম্বর ২০২০

বানিয়াচং (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বানিয়াচং উপজেলা মডেল কেয়ারটেকার আশিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে নিয়মবহির্ভূতভাবে স্ত্রীকে কোরআন শিক্ষা কেন্দ্রে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। আশিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারসহ নানা অভিযোগে গত বছরের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক বরাবর অভিযোগ দেন ফাউন্ডেশনের ৬২ শিক্ষক-শিক্ষিকা। তবে এখন পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বরং ফিল্ড সুপারভাইজার তৌহিদ মিয়াকে বদলি করা হয়েছে।

সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সই ছাড়া উপপরিচালককে ম্যানেজ করে স্ত্রী শিরিন সিদ্দিকাকে চাকরি পাইয়ে দিয়েছেন মডেল কেয়ারটেকার আশিকুল ইসলাম। এ ছাড়া নিবন্ধনহীন নিরাপদ মাল্টিপারপাস নামে একটি এনজিও খুলে গ্রাহকের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগসহ দায়িত্ব পালন না করে বেতন-ভাতা উত্তোলনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এসব কারণে বানিয়াচং উপজেলায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। এ উপজেলায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ১৫০ শিক্ষক রয়েছেন। ফিল্ড সুপারভাইজারের পদটি প্রায় ছয় মাস ধরে শূন্য রয়েছে। নবীগঞ্জের ফিল্ড সুপারভাইজার সুলায়মানকে বানিয়াচং উপজেলায় ফাউন্ডেশনের দায়িত্ব দিলেও কার্যক্রম খুঁড়িয়ে চলছে। এতে ভোগান্তিতে পড়ছেন কর্মরত শিক্ষকরা।

বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মডেল কেয়ারটেকার আশিকুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ মিথ্যা। এগুলো বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।

হবিগঞ্জের ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক শাহ নজরুল ইসলাম জানান, ইউএনওর সই ছাড়া তো চাকরি হওয়ার কথা না। বিষয়টি দেখব।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সিলেট বিভাগের পরিচালক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। যদি চাকরি করতে হয়, অবশ্যই ইউএনওর সই লাগবে। তার সই ছাড়া শিক্ষক নিয়োগ হবে অবৈধ। অভিযোগটি খতিয়ে দেখা হবে। ইউএনও ও বানিয়াচং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাপতি মাসুদ রানা জানান, এই শিক্ষক নিয়োগের বিষয়ে কিছুই জানেন না তিনি।