৬৫ নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার রায় একসঙ্গে

প্রকাশ: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন মামলায় অভিযুক্ত স্বামীদের কারাগারে না পাঠিয়ে পৃথক ৫৪টি মামলা আপসে নিষ্পত্তি করে দিয়েছেন সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক জাকির হোসেন। অন্য ১১ মামলায় স্বামীদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন বিচারক। মঙ্গলবার দুপুরে ৬৫টি পৃথক মামলার রায় একসঙ্গে দেওয়ায় আদালত প্রাঙ্গণে বিচারপ্রার্থীরা ছাড়াও গণমাধ্যমকর্মীর ভিড় ছিল।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সুনামগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট নান্টু রায়। রায় ঘোষণার পর আদালতের পক্ষ থেকে ৫৪ দম্পতিকে ফুল ও শিশুদের চকলেট তুলে দেন আদালতের কর্মীরা।

যৌতুকসহ নানা কারণে নির্যাতনের শিকার হয়ে সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলার ৬৫ নারী সংসার থেকে বিতাড়িত হয়ে স্বামীদের বিরুদ্ধে পৃথকভাবে আদালতে মামলা করেছিলেন। দীর্ঘদিন এসব মামলার বিচারকাজ চলছিল। নির্যাতনের শিকার হয়ে নারীরা তাদের ছোট শিশুদের নিয়ে অর্ধাহারে-অনাহারে অন্যত্র আশ্রয় নিয়ে অনিশ্চিত জীবনযুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এমন ৫৪ নারী ও তাদের সন্তানদের পারিবারিক বন্ধনে আবদ্ধ করে আপসের রায় দিলেন বিচারক। বিচারক উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে তাদের সন্তানদের ফিরিয়ে দিলেন বাবা-মা। আর স্বামী-স্ত্রীর বন্ধন অটুট রেখে ৫৪ দম্পতিকে পুনর্মিলনের ব্যবস্থা করে দিলেন।

কিন্তু ১১ দম্পতিকে একীভূত করতে সক্ষম না হওয়ায় এবং নির্যাতিত স্ত্রী ও তাদের সাক্ষীরা স্বামীর বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেওয়ায় এবং স্বামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন।

অ্যাডভোকেট নান্টু রায় বলেন, এর আগেও এই বিচারক এমন যুগান্তকারী রায় দিয়েছেন। এভাবে যদি বিচারকাজ চলে তাহলে বিচারপ্রার্থীরা সুবিচার পাবে।