কৃষক দয়াল হত্যা মামলার পলাতক আসামিকে গ্রেপ্তারের পর ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে সিলেটের বিশ্বনাথ থানার ওসি শামীম মুসা ও এসআই আফতাব উজ্জামান রিগ্যানের বিরুদ্ধে। এমন অভিযোগ এনে গত মঙ্গলবার বিকেলে সিলেটের পুলিশ সুপার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন মামলার বাদী কৃষক আহমদ আলী (৫০)। তিনি উপজেলার চৈতন্যনগর গ্রামের বাসিন্দা ও নিহত ছরকুম আলী দয়ালের (৭৫) ভাতিজা।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, চাউলধনী হাওরে লিজগ্রহীতা ও কৃষকদের মধ্যে পানি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত হন ছরকুম আলী দয়াল। এরপর হত্যা মামলা দায়ের করা হলে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয় আসামিদের বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার বিকেল ৩টার দিকে কবির আহমদ (৪০) নামে হত্যা মামলার পলাতক আসামিকে দশপাইকা বাজার থেকে জনসমক্ষে গ্রেপ্তার করেন থানার এসআই আফতাব উজ্জামান রিগ্যান। কিন্তু বিশ্বনাথ থানার ওসি শামীম মুসা মোবাইল ফোনে আসামিকে ছেড়ে দিতে বলায় গ্রেপ্তার হওয়া আসামি কবির আহমদকে জনসমক্ষেই ছেড়ে দেন এসআই।

তবে শামীম মুসা সমকালকে বলেন, হত্যা মামলার কোনো আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়নি এবং ছাড়াও হয়নি।

প্রসংগত, লিজগ্রহীতা ও কৃষকদের মধ্যে সংঘর্ষে চাউলধনী হাওরে গত ২৮ জানুয়ারি নিহত হন কৃষক ছরকুম আলী দয়াল। এ ঘটনায় থানায় গত ২ ফেব্রুয়ারি হত্যা মামলা করেন তার ভাতিজা কৃষক আহমদ আলী। মামলায় প্রবাসী সাইফুল আলমসহ বেশ ক'জনকে আসামি করা হয়। এরপর এ মামলায় অনেক আসামি উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিলেও জামিন নেননি দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক কবির আহমদ। ফলে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়। মঙ্গলবার কবির আহমদকে গ্রেপ্তার করলেও ছেড়ে দেয় পুলিশ।

মন্তব্য করুন