তাহিরপুরে মাত্র দুই কিলোমিটার রাস্তার জন্য দুই ইউনিয়নের মানুষের চলাচলে ব্যাপক দুর্ভোগ হচ্ছে। উপজেলার বালিজুড়ি ইউনিয়নের মাহতাবপুর গ্রাম থেকে বাদাঘাট ইউনিয়নের মল্লিকপুর পর্যন্ত রাস্তাটির দূরত্ব প্রায় দুই কিলোমিটার। শুস্ক মৌসুমে এ রাস্তা দিয়ে কোনো রকম গ্রাম দুটিতে যাতায়াত করা গেলেও বর্ষাকালে রাস্তায় হাঁটুপানি থাকায় যাতায়াত করা সম্ভব হয় না। ফলে পার্শ্ববর্তী সোহালা গ্রাম দিয়ে ঘুরে হেঁটে ও অটোরিকশায় বাদাঘাট যেতে ১০ মিনিটের রাস্তায় সময় লাগে ২৫ থেকে ৩০ মিনিট।\হমাহতাবপুর গ্রামের অধিকাংশ ছাত্রছাত্রী বাদাঘাট ইউনিয়নের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করে। যে কারণে মাহতাবপুর-মল্লিকপুর রাস্তাটি মাটি ভরাট করে পাকা করার জন্য এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে জোর দাবি উঠেছে।

বালিজুড়ি ইউনিয়নের মাহতাবপুর গ্রামের ইউপি সদস্য সোহেল মিয়া বলেন, বালিজুড়ি ইউনিয়ন পরিষদ অংশে আমরা ৪০ দিনের প্রকল্প থেকে মাটি ভরাট কাজ শেষ করেছি। এখন বাদাঘাট ইউনিয়নের অংশটুকুতে তারা মাটি ভরাটের কাজ করে দিলেই আপাতত বর্ষাকালে চলাচলের উপযোগী হবে রাস্তা।\হমাহতাবপুর গ্রামের ঠেলাগাড়ি চালক মহিন উদ্দিন বলেন, রাস্তাটির কারণে তারা বেশ দুর্ভোগে পড়েন। একটু বৃষ্টি হলে তো দুর্ভোগের আর সীমা থাকে না।

বাদাঘাট ইউনিয়নের মল্লিকপুর গ্রামের বাসিন্দা জুলহাস মল্লিক বলেন, মাহতাবপুর-মল্লিকপুর রাস্তাটি মাটি ভরাটসহ পাকা রাস্তা করে দিলে বর্ষা মৌসুমে বাদাঘাট ইউনিয়নের লোকজন এ রাস্তা দিয়ে সহজেই তাহিরপুর উপজেলা সদরে যাতায়াত করতে পারবে।

বাদাঘাট সরকারি ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী মুজাম্মিল হোসেন জানান, দুই কিলোমিটার রাস্তার জন্য\হবর্ষাকালে তাদের সোহালা গ্রাম দিয়ে অতিরিক্ত ৫ কিলোমিটার ঘুরে বাদাঘাট সরকারি কলেজে যাতায়াত করতে হয়।

মাহতাবপুর গ্রামের বিপ্লব হাসান ইমন জানান, বাদাঘাট ইউনিয়নের মল্লিকপুর থেকে বাদাঘাট সরকারি ডিগ্রি কলেজ পর্যন্ত রাস্তাটি পাকা করা। সম্প্রতি বালিজুড়ি ইউনিয়নের মাহতাবপুর থেকে এক কিলোমিটার রাস্তা বালিজুড়ি ইউনিয়ন পরিষদ মাটি ভরাট করেছে। এখন বাদাঘাট ইউনিয়নের এক কিলোমিটার সড়ক মাটি ভরাট করলে দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমে যেত। রাস্তাটি স্থায়ীভাবে নির্মাণের জন্য তারা সংসদ সদস্যের কাছে দাবি রেখেছেন।\হসুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, মাহতাবপুর-মল্লিকপুর রাস্তার বাদাঘাট ইউনিয়নের অংশটুকুতে বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের কাজ করার কথা। তারপরও আমি খোঁজ নিচ্ছি। এ রাস্তার কাজটি দ্রুত সময়ের মধ্যেই শেষ করে চলাচলের উপযোগী করে দেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন