কঠোর লকডাউনের মধ্যে ঈদ উপলক্ষে খুলে দেওয়া হয়েছে মার্কেট ও শপিংমল। সামাজিক দূরত্ব মানার বিষয়টি অধিকাংশ লোকজন আমলেই নিচ্ছে না। স্বাভাবিকভাবে ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন সিলেটের লোকজন। বলতে গেলে কঠোর লকডাউনেও জমে উঠেছে সিলেটে ঈদের বাজার। সকাল থেকেই নগরীর বিপণিবিতানগুলোতে দেখা গেছে ক্রেতার ভিড়।

গত কয়েক দিন সিলেট নগরীর জিন্দাবাজার, বন্দরবাজার, আম্বরখানা, লামাবাজার, নয়াসড়ক, কুমারপাড়া, বারুতখানা, দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা দেখা গেছে ক্রেতার ভিড়। অভিজাত শপিংমলগুলোতে কিছুটা স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে। তবে অন্য শপিংমলগুলোতে সেভাবে মানা হচ্ছে না। এসব মার্কেটের ব্যবসায়ীরা জানান, তাদের ব্যবসা জমে উঠতে শুরু করেছে। গেল বছর ব্যবসা ভালো না হওয়ায় এবার তারা আশাবাদী।

মধুবন মার্কেটের ব্যবসায়ী লাকি ফ্যাশনের মালিক আনিসুর রহমান বলেন, ব্যবসা ভালো হচ্ছে। লকডাউন উঠে গেলে ব্যবসা আরও ভালো হবে। গেল কয়েক মাসে দোকানে নতুন কিছু কালেকশন আনা হয়েছে। তেমন বিক্রি হয়নি। কয়েকদিন ধরে বিক্রি ভালো হচ্ছে।

হকার মার্কেটের ব্যবসায়ী আব্দুল লতিফ বলেন, গত এক বছরে দোকানে অনেক মাল জমা হয়েছে। কিন্তু খুচরা বিক্রেতারা না নেওয়ায় মাল আটকা পড়ে। কয়েকদিন ধরে ব্যবসা জমতে শুরু করেছে।

জিন্দাবাজারে ঈদের নতুন পোশাক কিনতে আসা সোহানা ইসলাম বলেন, করোনার ঝুঁকি থাকলেও কিছু করার নেই। ঈদে সন্তানকে নতুন পোশাক না দিতে পারলে ভালো লাগবে না, তাই কেনাকাটা করতে আসা।

নয়া সড়ক ব্যবসায়ী অ্যেিসাসিয়েশনের সভাপতি ফ্যাশন হাউস মাহার স্বত্বাধিকারী মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম বলেন, কয়েকদিন ধরে ব্যবসা জমতে শুরু করেছে। নয়া সড়ক এলাকায় প্রতিটি ফ্যাশন হাউসে শতভাগ স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। মাস্ক না থাকলে মাস্ক পরিয়ে দোকানে প্রবেশ করানো হচ্ছে। হ্যান্ড স্যানিটাইজারও দেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য করুন