মাধবপুরে উপজেলা পর্যায়ে দীর্ঘদিন ধরে পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পদটি শূন্য থাকায় কাজের প্রতি উদাসীন মাঠপর্যায়ের কর্মীরা। ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। ফলে করোনাকালে সাধারণ মানুষ ও পিছিয়ে পড়া চা বাগানের বাসিন্দারা কাঙ্ক্ষিত সেবা পাচ্ছেন না।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, শাহজাহানপুর ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এমবিবিএস ডাক্তারসহ ১০টি পদের মধ্যে ৮টি পদে লোকবল রয়েছে। আশিকুর রহমান নামে একজন এমবিবিএস ডাক্তারের নিয়মিত এখানে রোগী দেখার কথা থাকলেও লকডাউনের অজুহাতে আসা বন্ধ করে দিয়েছেন তিনি। ডাক্তার না আসায় চা বাগানের কর্মীসহ শত শত মানুষ স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বিশেষ করে গর্ভবতী মায়ের প্রসব পূর্ব ও পরবর্তী সেবা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এ ছাড়া পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের পর্যাপ্ত লোকবল থাকার পরও কর্মীদের দায়িত্ব পালনে অবহেলার কারণে নবদম্পতিদের কোনো সমীক্ষায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে না। পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রমও প্রায় বন্ধ।

চা বাগানের বেশিরভাগ পরিবারইে কমপক্ষে ৪টি করে সন্তান রয়েছে। পরিবার পরিকল্পনা সেবার অপ্রতুলতা আর অনীহার কারণে এদের মধ্যে দারিদ্র্য বাড়ার পাশাপাশি রয়েছে অপুষ্টিজনিত সমস্যা। সন্তান প্রসব করতে গিয়ে মা ও নবজাতকের মৃত্যু এখানে খুবই সাধারণ ব্যাপার। অথচ গত এক বছরে চা বাগান এলাকায় পরিকল্পনা বিভাগের কোনো কর্মীকে মাঠপর্যায়ে যেতে দেখা যায়নি।

মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ইশতিয়াক আল মামুন জানান, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগটি দেখার জন্য সম্প্রতি একজন কর্মকর্তাকে পদায়ন করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন