সুনামগঞ্জে সরকারের খাস খতিয়ানভুক্ত জমি চিহ্নিত করতে গিয়ে অবৈধ দখলদারদের হামলায় এসিল্যান্ড, পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টরসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। পুলিশ ও আনসার সদস্যরা আত্মরক্ষার্থে ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১০ জনকে আটক করেছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার আদারবাজার সংলগ্ন এলাকায় সরকারের খাস খতিয়ানভুক্ত ২৫ একর জমি রয়েছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষে ১৫টি গৃহহীন পরিবারের জন্য গৃহনির্মাণ করতে ৩০ শতক সরকারি জমি চিহ্নিত করতে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরিফ আদনান দু'জন তহশিলদার এবং পুলিশসহ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে সেখানে যান। ভূমি অফিসের লোকজন সেখানে সরকারি জমি চিহ্নিত করার কাজ শুরু করতেই, হরিনাপাটিসহ আশপাশের গ্রামের নারী-শিশু এবং কিছু পুরুষ দা, রামদা, লাঠিসোটা নিয়ে পুলিশ ও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ওপর হামলা চালায়। তারা এসিল্যান্ড আরিফ আদনান এবং পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর জাহাঙ্গীর আলমকেও আক্রমণ করে। ঘটনাস্থলে থাকা আনসার কমান্ডার বিষুষ্ণপদ, তহশিলদার কামাল হোসেন ও একেএম সাব্বির, জারিকারক মুনসুর রহমান, উপজেলা এলজিইডির সহকারী প্রকৌশলী তৌহিদুজ্জামান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা আব্দুর রউফসহ ১০ জন এ সময় ইটপাটকেলের আঘাতে আহত হন। পুলিশ ও আনসার সদস্যরা আত্মরক্ষার্থে ১৪ রাউন্ড গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

ফের সংঘর্ষের আশঙ্কায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়নাল আবেদীন ও সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি শহীদুর রহমানের নেতৃত্বে সেখানে বিকেল ৪টা পর্যন্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল।

হরিনাপাটি গ্রামের মকব্বির মিয়া জানান, সরকারি খাস জমিতে কয়েকদিন আগে ড্রেজার দিয়ে মাটি ভরাট হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই জমি মাপজোক করতে এলে গ্রামের পশ্চিমহাটির লোকজন দলবদ্ধভাবে হামলা চালায়। হামলা ঠেকাতে পুলিশ ও আনসার ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

এ সময় হামলাকারীরা পিছু হটে।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, সরকারি জমি চিহ্নিত করার সময় একদল দখলদার বাধা দিয়েছে। তারা সহকারী কমিশনারসহ (ভূমি) পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টরের ওপর হামলা করেছে। এ সময় পুলিশ ও আনসার ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। তিনি জানান, ঘটনাস্থল থেকে ১০ জনকে আটক করা হয়েছে। যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, সরকারি জমির অবৈধ দখলদারদাররা সংঘবদ্ধ হয়ে সরকারি কমকর্তা-কর্মচারীদের ওপর হামলা করেছে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ ও আনসার ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলিছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

বিষয় : হামলা এসিল্যান্ড

মন্তব্য করুন