সুনামগঞ্জের ছাতকে বালুমহালে অতিরিক্ত ইজারা আদায়ের বিষয়ে জটিলতার সমাধান হয়নি গত তিন দিনেও। ফলে চেলা ও মরা চেলা বালু মহালে নিয়োজিত শ্রমিকরা বালু উত্তোলন বন্ধ রেখেছেন। এতে বিপাকে পড়েছেন বালু ব্যবসায়ীরা।

বালু মহালে অতিরিক্ত ইজারা আদায়ে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের (ডিসি) দ্রুত হস্তক্ষেপ চাইলেন স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতারা। এই জটিলতা নিরসনের বিষয়ে গত শনিবার সিলেটের বিভাগীয় কমিশনারসহ একাধিক দপ্তরে লিখিত আবেদনের অনুলিপি দেওয়া হয়েছে।

ব্যবসায়ী সংগঠনের লিখিত অভিযোগে বলা হয়, বালু উত্তোলন কাজে এখানে প্রায় ১৫ হাজার শ্রমিক নিয়োজিত রয়েছে। প্রতিদিনই শ্রমিকরা বালু মহাল থেকে বালতি-বেলচার মাধ্যমে বালু সংগ্রহের ইজারামূল্য পরিশোধ করে তারপর বালু পরিবহন করে থাকেন। অতিরিক্ত ইজারা আদায় নিয়ে সম্প্রতি জটিলতা দেখা দিলে থানা পুলিশের সহযোগিতায় ইজারাদার পক্ষ ও বালু ব্যবসায়ী সংগঠনের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে সর্বসম্মতিক্রমে বালু উত্তোলনে প্রতি ঘনফুটে এক টাকা পঞ্চাশ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু গত ১২ সেপ্টেম্বর হঠাৎ করে ইজারাদার পক্ষ মাইকিং করে প্রতি ঘনফুট বালুর ইজারা বাবদ তিন টাকা দাবি করে। এ ঘোষণার পর গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে স্থানীয় শ্রমিকরা মহাল থেকে বালু উত্তোলন বন্ধ করে দেয়।

বালুমহালের ইজারাদার ফয়েজ আহমদ বলেন, জেলা পরিষদ থেকে দেওয়া বালুমহালে প্রতি ঘনফুটে সরকারি ইজারা আদায়ের টাকার পরিমাণ নির্দিষ্ট নয় বলেই এ জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে।

জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বালুমহাল ইজারদার ও বালু উত্তোলনকারী শ্রমিকদের কেউই যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে বিষয়ে উভয় পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন