ছাতকের গোবিন্দগঞ্জ বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আখলাদ মিয়া হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ। মামলার মূল আসামি আবু সুফিয়ান সোহাগ বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দায় স্ব্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে।\হএর আগে হত্যা মামলায় জড়িত থাকায় উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ সৈয়দেরগাঁও ইউনিয়নের গোবিন্দনগর গ্রামের মৃত ফজলু মিয়ার ছেলে আবু সুফিয়ান সোহাগকে সিলেট শহরের লালবাজার দিরাই রেস্টহাউস থেকে ও আলিম উদ্দিনকে তার বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।\হমামলার তদন্ত কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক মহিন উদ্দিন বলেন, সোহাগ জবানবন্দিতে জানায়, গত রোববার সন্ধ্যায় পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী তারা পাঁচজন বড়াইরগাঁও গ্রামের সড়কে অবস্থিত কালভার্টে অবস্থান নেয়। ব্যবসায়ী আখলাদ ওই রাতে সাইকেলে বাড়ি যাওয়ার পথে কালভার্টের সামনে পৌঁছলে তার গতিরোধ করে সাইকেল থেকে তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেওয়া হয়। এ সময় তাদের একজন আখলাদের মুখচাপা দিয়ে ধরে এবং অন্য আসামিরা ধারালো ছুরি দিয়ে ডান পায়ের ঊরুতে আঘাত করে তার সঙ্গে থাকা ২৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। প্রাণ বাঁচাতে আখলাদ ধানক্ষেত দিয়ে দৌড়ে যাওয়ার সময় তাকে আবারও আঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর পালিয়ে যায় আসামিরা।\হনিহত আখলাদ মিয়া উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ সৈয়দেরগাঁও ইউনিয়নের মোল্লাআতা গ্রামের জহির আলীর ছেলে। গোবিন্দগঞ্জের হোছন সুপার মার্কেটের সামনে খোলাবাজারে মুদি মালের ব্যবসায়ী ছিলেন আখলাদ। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে আখলাদের বড় ভাই আশিক মিয়া বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। এ হত্যা মামলায় জড়িত অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের জোর চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য করুন