হবিগঞ্জের খোয়াই নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন এখনও বন্ধ হয়নি। লিজের নিয়ম ভঙ্গ করে প্রশাসনের চোখের সামনেই অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে উত্তোলন করা হচ্ছে বালু। এতে হুমকির মুখে পড়েছে পরিবেশ। নদীর তীর দিয়ে বালুবাহী ট্রাক্টর চলাচল করায় দূর্বল হয়ে পড়ছে বাঁধ। এতে জোয়ার এলেই আতঙ্ক দেখা দেয় তীরবর্তী বাসিন্দাদের মধ্যে।\হখোয়াই নদীর বিভিন্ন অংশে ড্রেজার বসিয়ে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ২৪ ঘণ্টাই তোলা হচ্ছে বালু। আর এর সঙ্গে জড়িত রয়েছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল, যাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস পায় না কেউ। জেলা শহর থেকে চুনারুঘাট উপজেলার বাল্লা পর্যন্ত অন্তত শতাধিক স্থানে বসেছে এসব ড্রেজার। কোথাও একটি আবার কোথাও একাধিক।\হস্থানীয়দের অভিযোগ, জেলা-উপজেলা শহরের ক্ষমতাসীন দলের কিছু নেতাকর্মী ও স্থানীয় প্রভাবশালীরা বালু উত্তোলনের সঙ্গে জড়িত।\হসম্মিলিত নাগরিক আন্দোলন হবিগঞ্জের সভাপতি পিষুষ চক্রবর্তী বলেন, বাংলাদেশে কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ নদীর মধ্যে খোয়াই একটি। যারা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলে, তাদের একটি বিশাল সিন্ডিকেট রয়েছে। তারা খুবই প্রভাবশালী। প্রশাসন যদি তাদের এখনই না রোখে, তাহলে সরকারের রাজস্বে ধস নামার পাশাপাশি পরিবেশের বিপর্যয় ঘটবে।\হবাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন বাপা হবিগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল বলেন, নদী থেকে মাটি ও বালু উত্তোলনের নামে নদীটি ধ্বংসের মুখে নিয়ে যাচ্ছে একটি চক্র। শহরের গরুর বাজার থেকে বাল্লা সীমান্ত পর্যন্ত শাতাধিক পয়েন্ট থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু তোলা হচ্ছে। ফলে নদীর দু'পাড় বর্ষা মৌসুমে অরক্ষিত হয়ে যায়। তাই প্রশাসনের কাছে দ্রুত বিষয়টি সমাধানের জন্য দাবি জানান তিনি।\হজেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান বলেন, বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসন সবসময় সোচ্চার ভূমিকা রেখেছে। যারা নদী থেকে বালু তোলে, তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে।

মন্তব্য করুন