'নৌকার পালে হাওয়া লাগেনি, বিএনপি-জামায়েতের ভোটাররা ভেতরে ভেতরে ঐক্যবদ্ধ। এ জন্য বিদ্রোহী প্রার্থীকে নিয়েই এগুতে হবে।' দোয়ারাবাজারের আওয়ামী লীগের কর্মী আব্দুল জলিলের মন্তব্য এটি।

শুধু আব্দুল জলিল নন, দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের তৃণমূলের অনেক নেতাকর্মীই দলের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় সক্রিয় নন। তাই দলের প্রার্থীর বিজয় নিয়ে রয়েছে শঙ্কা, উদ্বেগ। এ উপজেলার উপনির্বাচনে দলের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে ব্যবসায়ী নুরুল ইসলামকে। মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন ১১ জন। এর মধ্যে নৌকার পক্ষে এ পর্যন্ত প্রচারণায় যুক্ত হয়েছেন তিনজন। অন্যরা এখনও প্রচারণায়ই নামেননি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল খালিক বলেন, 'দলের প্রার্থী রাজনীতিতে সক্রিয় নন। দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগও তার কম, গত দু'দিন তিনি অসুস্থ হয়ে প্রচারণায়ও ছিলেন না। এ অবস্থায় কর্মীরা সাহস হারিয়ে ফেলছেন। আমরা চেষ্টা করছি মনোবল চাঙা করে নৌকার পক্ষে আওয়াজ তুলতে।'

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ইদ্রিছ আলী বীরপ্রতীক, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক দেওয়ান আল তানভীর আশরাফী চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের নেতা আব্দুল আজাদ রুমান, দলীয় নেতা রুহুল কদ্দুছ তিলক, চান মিয়া, নুরুল ইসলাম, ছায়াদুর রহমান তালুকদার, শফিকুল ইসলাম বাবুল ও খন্দোকার মামুনুর রশিদ।

এই ১১ মনোনয়নপ্রত্যাশীর মধ্যে প্রচারণার শেষ মুহূর্তেও ইদ্রিছ আলী বীরপ্রতীক, রুহুল কদ্দুছ তিলক ও শফিকুল ইসলাম ছাড়া অন্যদের দেখা যাচ্ছে না।

উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ইদ্রিছ আলী বীরপ্রতীক বলেন, দলের নেতাকর্মীদের বেশিরভাগই নৌকার পক্ষে প্রচারণায় আছেন। দলীয় প্রার্থী সক্রিয় রাজনীতিবিদ না হওয়ায় সাড়া জাগাতে পারছেন না মন্তব্য করে তিনি বললেন, শেষ পর্যন্ত সবাই মিলেই নৌকা বাইবে, বিজয় নৌকারই হবে।

নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা বা দলের নেতাকর্মীদের সক্রিয়তার বিষয়ে জেলা কমিটির পক্ষ থেকে এখনও খোঁজখবর নেওয়া হয়নি জানিয়ে ইদ্রিছ আলী বীরপ্রতীক বলেন, কেন্দ্রীয় দপ্তর থেকে আমাদের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন বলেন, দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের যে তালিকা দেওয়া হয়েছে, সেটিই আমরা সুপারিশ করে কেন্দ্রীয় স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডে পাঠিয়েছি। সর্বোপরি দলের সিদ্ধান্ত সবাইকে মানতে হবে। সবাই মিলে চেষ্টা করেই নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে।

এই উপনির্বাচনে স্বতন্ত্রের মোড়কে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, জেলা বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক এম এ বারী (আনারস), জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আবু সালেহ (লাঙ্গল), উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক দেওয়ান আল তানভীর আশরাফী চৌধুরী (কাপ-পিরিচ)।

দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডা. আব্দুর রহিম গত ৩০ সেপ্টেম্বর মারা যান। তার মৃত্যুতে শূন্য হওয়া এ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচন হবে আগামী ২৭ জানুয়ারি।

মন্তব্য করুন