শমশেরনগর-কুলাউড়া সড়কের শমশেরনগর বিমানবাহিনী ইউনিটের কাছে রাস্তার দুটি স্থানে প্রায়ই

দেবে যায় পাথর ও কয়লাবোঝাই ট্রাক। অর্ধকিলোমিটার রাস্তার কার্পেটিং তুলে ফেলার পর থেকে এক মাস ধরে ওই দুটি স্থানে ট্রাক দেবে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে। এতে যান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে ও দুর্ভোগে পড়ছেন যাত্রীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সবশেষ শুক্রবার ভোরে সড়কের শমশেরনগর বিমানবাহিনী ইউনিটের কাছে রেলগেটের দু'পাশে রাস্তার মধ্যবর্তী স্থানে দুটি ট্রাকের চাকা দেবে যায়। ঠিকাদারের গাফিলতির কারণে কয়লাবাহী ট্রাকগুলো দেবে যাওয়ার পর দু'পাশে যানবাহন আটকা

পড়ে। এতে দুর্ভোগে পড়েন যাত্রীরা। গাড়ি থেকে নেমে কিছু যাত্রী

হেঁটে যাতায়াত করতে বাধ্য হন। তবে যাত্রীবাহী যানবাহনের চালকদের আটকে পড়া ট্রাকের পাশ দিয়ে মাটি ফেলে ঝুঁকি নিয়েও চলাচল করতে দেখা গেছে।

জানা যায়, শমশেরনগর-কুলাউড়া সড়কের রেলগেট এলাকায় প্রায় অর্ধকিলোমিটার জায়গা সংস্কারের জন্য কাজ পান সিলেটের ঠিকাদার জামিল ইকবাল। তিনি সড়কের ওই স্থানের কার্পেটিং

তুলে ফেলেছেন। এক মাস ধরে কার্পেটিং তুলে রাখলেও কোনো সংস্কারকাজ করেননি।

শ্রীমঙ্গল-শমশেরনগর ও কুলাউড়া বাস-মিনিবাস চালক সমিতির ম্যানেজার জুলহাস আহমেদ জানান, এভাবে প্রতিনিয়ত সড়কের ওই দুটি স্থানে এসেই পণ্যবোঝাই ট্রাকের চাকা দেবে যায়। পরে অন্য যানবাহন কিছু সময় বন্ধ থাকে এবং পাশ দিয়ে চলাচলের ব্যবস্থা করা হলেও ঝুঁকি নিয়ে সেই স্থান অতিক্রম করতে হয়। একই ধরনের অভিযোগ করেন অটোরিকশাচালক বিল্লাল মিয়া ও শিমুল মিয়া।

এ ব্যাপারে জানতে ঠিকাদার জামিল ইকবালের মোবাইল ফোনে কয়েক দফা যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের মৌলভীবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী জিয়াউদ্দীন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আসলে ঠিকাদারদের গাফিলতির কারণে এসব সমস্যা হচ্ছে। একজন ঠিকাদার কাজ ফেলে আদালতে মামলা দিয়েছেন। ফলে সড়কে কাজ না হওয়ায় দুর্ভোগ হচ্ছে।

মন্তব্য করুন