সা ক্ষা ৎ কা র

আইডিবির অর্থায়নের প্রকল্পে গতি বাড়বে

এম এইচ হাজ্জার

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

ইসলামিক উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবি) প্রেসিডেন্ট ড. বন্দর এমএইচ হাজ্জার। সংস্থার আঞ্চলিক কার্যালয় উদ্বোধন উপলক্ষে বর্তমানে ঢাকা সফরে রয়েছেন তিনি। শনিবার র‌্যাডিসন হোটেলে বাংলাদেশে আইডিবির কার্যক্রমসহ বিভিন্ন ইস্যুতে সমকালের সঙ্গে কথা বলেন আন্তর্জাতিক এ অর্থায়ন সংস্থার প্রধান। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন

সমকাল :আঞ্চলিক কার্যালয় স্থাপনে আইডিবি কেন বাংলাদেশকে বেছে নিয়েছে?

এমএইচ হাজ্জার :ব্যাংকটিকে আমরা আরও সক্রিয় করে চাই। আইডিবির অর্থায়নের প্রকল্পের বাস্তবায়ন গতি বাড়াতে সদস্য দেশগুলোতে কার্যক্রম বাড়ানোর উদ্যোগের অংশ এটি। ৫৬টি দেশের কার্যক্রম আইডিবির সদর দপ্তর জেদ্দা থেকে পরিচালনা করা কঠিন।

জনগণের আরও কাছে যেতে এবং একই সময়ে উন্নয়নে বেসরকারি খাত, এনজিওসহ এর অন্যান্য সহযোগী উন্নয়ন সংস্থা নিয়ে একটি নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে চাই আমরা। ভৌগোলিক অবস্থান বিবেচনা করে আইডিবি বাংলাদেশে আঞ্চলিক কার্যালয় স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশে আইডিবির অর্থায়নের প্রকল্প বাস্তবায়নে গতি আরও দ্রুত হবে। আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে ১৯টি মুসলিম দেশের কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। এ ছাড়া সিঙ্গাপুর, অষ্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড এবং ভারতের মতো অমুসলিম দেশের সঙ্গে ঢাকা থেকে যোগাযোগ আরও সহজ হবে।

সমকাল :বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক এ উন্নয়নকে আপনি কীভাবে দেখেন।

এমএইচ হাজ্জার : বাংলাদেশ আইডিবির সক্রিয় সদস্য। ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ আইডিবির সদস্যভুক্ত হয়। বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের উন্নয়নে এ পর্যন্ত আইডিবি ২২ বিলিয়ন ডলার সহায়তা অনুমোদন করেছে। আইডিবির অর্থায়নে মানসম্মত শিক্ষা, পানি, বিদ্যুৎ, জ্বালানি, পরিবহনসহ বিভিন্ন খাতের উন্নয়নে প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। বাংলাদেশের জনগণের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে এসব প্রকল্পে অর্থায়ন করা হয়েছে। বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে ৬ শতাংশের বেশি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ থাকলেও প্রবৃদ্ধি অর্জনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেক ভালো করছে।

সমকাল :প্রতিষ্ঠার শুরু থেকে বাংলাদেশের ইসলামী ব্যাংকে আইডিবির শেয়ার রয়েছে। কিন্তু ২০১৭ সালে ইসলামী ব্যাংকের ৫ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করেছে আইডিবি। এর কারণ কি?

এমএইচ হাজ্জার : কোনো প্রকল্প বিশেষ করে ইসলামী ব্যাংকগুলো থেকে বিনিয়োগ নিয়ে প্রবেশ করা এবং বের হওয়ার নীতিমালা আছে আইডিবির। যাত্রার সময় ইসলামী ব্যাংকের জন্য আইডিবির সহায়তার প্রয়োজন ছিল। কারণ ৪৪ বছরের শক্ত কাঠামোর ওপর দাঁড়ানো প্রতিষ্ঠান আইডিবি। আন্তর্জাতিকভাবে সারাবিশ্বে আইডিবি আস্থার প্রতিষ্ঠান। আইডিবিও এ প্রকল্প থেকে বের হয়ে অন্য কোনো জায়গায় নতুন ব্যাংক স্থাপনে সহায়তা দেবে। প্রয়োজন হলে সেখানে বিনিয়োগ করবে। এ ধরনের নীতি শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, সব দেশের জন্য একইভাবে সমতার ভিত্তিতে কাজ করছে আইডিবি। কোনো সমস্যার কারণে আইডিবি শেয়ার ছেড়ে দেয় না। মুনাফা করা আমাদের লক্ষ্য নয়। আইডিবি যথেষ্ট শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান।

সমকাল : আইডিবি শেয়ার বিক্রি করায় ইসলামী ব্যাংকের বাজার মূলধন উল্লেখযোগ্যভাবে কমেছে। বিয়টি আপনি কীভাবে ব্যাখ্যা করবেন?

এমএইচ হাজ্জার :স্থানীয় বা আন্তর্জাতিক সব ব্যবসায় অস্থিরতা থাকে। যে কোনো দেশের অর্থনীতিতেও উত্থান-পতন রয়েছে। বিশ্বের যে ব্যাংকের শেয়ার আজ ১০০ ডলার বিক্রি হলেও কাল হয়তো দাম কমে ৫০ ডলারে বিক্রি হবে। এরপর দিন আবার ১৫০ ডলার দাম উঠবে। এটাই শেয়ারবাজার। এটাই ব্যবসার স্বাভাবিক ধরন। শুধু বাংলাদেশে নয়, সারাবিশ্বে ব্যবসার ধরন একই।

সমকাল :সম্প্রতি মিয়ানমার থেকে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এর আগেও প্রায় পাঁচ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশ এসেছে। বিশ্বব্যাংক, এডিবিসহ অনেক উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা রোহিঙ্গাদের জন্য সহায়তা দিয়েছে। আইডিবি কি এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেবে?

এমএইচ হাজ্জার :রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। রোহিঙ্গা মুসলিমদের নিয়ে আইডিবির অবস্থান ইতিবাচক। আইডিবি তার নীতিমালা অনুয়ায়ী সহায়তা করে। নীতিমালার বাইরে গিয়ে কোনো কার্যক্রম পরিচালনা করে না আইডিবি। রোহিঙ্গা ইস্যুতে আইডিবি অবহিত আছে। কারিগরি সহায়তা প্রকল্পের মাধ্যমে আইডিবি রোহিঙ্গাদের সহায়তা দেওয়ার আয়োজন করছে।

সমকাল :বাংলাদেশে সহায়তার পরিমাণ বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা আছে কি?

এমএইচ হাজ্জার : ঢাকায় আইডিবির আঞ্চলিক কার্যালয়ের কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। কিছু লোকও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এখন বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করা আরও সহজ হবে। ফলে বাংলাদেশ সরকারের চাহিদার ভিত্তিতে অঞ্চলিক কার্যালয়ের সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সমকাল :বিশ্বব্যাংকের ঋণের সুদহার শূন্য দশমিক ৭৫ শতাংশ। অন্যদিকে আইডিবির ঋণের সুদহার সাড়ে ৩ শতাংশ বেশি। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) চেয়েও আইডিবির সুদহার বেশি। ঋণের সুদহার কমাতে আপনার কোনো উদ্যোগ আছে কি?

এমএইচ হাজ্জার :আইডিবি মুনাফাভিত্তিক সংগঠন নয়। আইডিবি যে সুদ নিচ্ছে, তা কোনো মুনাফার উদ্দেশ্যে নিচ্ছে না। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের উন্নয়নে কাজ করছে। এর মাধ্যমে সদস্য দেশগুলোর দারিদ্র্যবিমোচনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আইডিবি বিভিন্নভাবে সদস্যভুক্ত দেশগুলোর জন্য অর্থায়ন করতে চায়।
সীমান্তে মিলল রাখালের লাশ

সীমান্তে মিলল রাখালের লাশ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের কিরণগঞ্জ সীমান্তে আঃ রহিম নামে এক রাখালের লাশ উদ্ধার ...

বিকেল নাগাদ অন্ধ্র উপকূল অতিক্রম করতে পারে 'ফেথাই'

বিকেল নাগাদ অন্ধ্র উপকূল অতিক্রম করতে পারে 'ফেথাই'

বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় 'ফেথাই' সোমবার বিকেল নাগাদ ভারতের অন্ধ্র ...

লিভার সিরোসিস কখন হয়

লিভার সিরোসিস কখন হয়

লিভার সিরোসিস একটি জটিল রোগ। সাধারণত লিভারের দীর্ঘমেয়াদি প্রদাহের কারণে ...

বাংলাদেশের নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে ভারত

বাংলাদেশের নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে ভারত

ভারত আগামী ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশে সংসদ নির্বাচন পর্যবেক্ষণের জন্য প্রতিনিধিদল ...

চাঁদপুরে বাড়িতে দুই শিশুসহ পরিবারের ৪ জনের লাশ

চাঁদপুরে বাড়িতে দুই শিশুসহ পরিবারের ৪ জনের লাশ

চাঁদপুর সদর উপজেলায় একটি বাড়িতে দুই শিশুসহ একই পরিবারের চারজনের ...

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাবে দেশ

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় এগিয়ে যাবে দেশ

প্রতি বছরই আসে ১৬ ডিসেম্বর, আসে বিজয়ের দিন। আবারও 'বিজয় ...

সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে জয়-পরাজয়ে যত ফ্যাক্টর

সিলেট বিভাগের ১৯ আসনে জয়-পরাজয়ে যত ফ্যাক্টর

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট বিভাগের ১৯ আসন নিয়ে পুলিশের ...

টি২০-তেও দারুণ চমকের অপেক্ষা

টি২০-তেও দারুণ চমকের অপেক্ষা

দূরে মাইকে কোথাও বেজে চলেছে বিজয় দিবসে কচিকাঁচার কণ্ঠে আমার ...