ফুটবল খেলা দেখাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ

প্রকাশ: ০৮ জুলাই ২০১৮      

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার

সাভারে রাস্তা বন্ধ করে প্রজেক্টর লাগিয়ে ফুটবল খেলা দেখাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী ও বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ঢাকা জেলা উত্তর তাঁতী লীগ সভাপতি মোবারক হোসেন খোকনসহ আহত হয়েছেন ৫ জন। তাদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে সাভার পৌর এলাকার কর্ণপাড়া মহল্লায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হলে রাতেই পৌর বিএনপি সভাপতি মো. রেফাত উল্লাহর ভাই রহমত উল্লাহকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

শুক্রবার রাতে পৌর এলাকার কর্ণপাড়া মহল্লায় রাস্তা বন্ধ করে প্রজেক্টর লাগিয়ে খেলা দেখছিলেন পৌর বিএনপি সভাপতি রেফাত উল্লাহর ভাই, ভাতিজা, ছেলে ও বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এ সময় ঢাকা জেলা উত্তর তাঁতী লীগ সভাপতি মোবারক হোসেন খোকন নিজ গাড়িতে বাড়ি ফিরছিলেন। কিন্তু রাস্তা বন্ধ করে খেলা দেখার কারণে তিনি বিষয়টির প্রতিবাদ করেন। এ নিয়ে বিএনপি নেতা রহমত উল্লাহসহ তার লোকজনের সঙ্গে তর্ক-বিতর্কের এক পর্যায়ে খোকনের ওপর হামলা চালানো হয়। খবর পেয়ে আওয়ামী লীগের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা এগিয়ে এলে দুই পÿে মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। ঘন্টাব্যাপী দুই গ্রল্ফম্নপের সংঘর্ষে তাতী লীগ নেতা খোকনসহ আহত হন ৫ জন। খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পরে স্থানীয়রা আশঙ্কাজনক অবস্থায় মোবারক হোসেন খোকনকে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মোবারক হোসেন খোকন বলেন, রাস্তা বন্ধ করে খেলা দেখার প্রতিবাদ করায় বিএনপি নেতা রহমত উল্লাহ, সেন্টু, শাওন, সাব্বির, সোহান, আসলাম, বুলবুল, মন্টু ও রাশেদ আমাকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। সাভার পৌর বিএনপি সভাপতি রেফাত উল্লাহ বলেন, 'আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উস্কানি না দিলে এ ঘটনা ঘটত না। এর জন্য ক্ষমতাসীনরাই দায়ী।

সাভার মডেল থানার ওসি মহসিনুল কাদির বলেন, হামলার ঘটনায় মামলা হলে এক বিএনপি নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।