জলাবদ্ধতায় কাদামাটিতে একাকার খেলার মাঠ

দেওয়ালিয়াবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রকাশ: ০৮ জুলাই ২০১৮      

এম তুষারী, কালিয়াকৈর (গাজীপুর)

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কোনাবাড়ী শিল্পাঞ্চলের দেওয়ালিয়াবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খেলার মাঠটি গত এক বছর ধরে অনুপযোগী হয়ে রয়েছে। এ খেলার মাঠে বৃষ্টির জলাবদ্ধতার পানি জমে থেকে ওই কাঁদার সৃষ্টি হয়েছে। মাঠের ওপর দিয়ে হাঁটতে গেলে হাঁটু পর্যন্ত দেবে যাচ্ছে বলে স্কুলের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে।

ওই স্কুলে গিয়ে খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ৮নং ওয়ার্ডের ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের দক্ষিণপাশে দেওয়ালিয়াবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও স্কুলের খেলার মাঠটির কোনো উন্নয়ন হয়নি। বর্তমানে স্কুলে চার শতাধিক শিক্ষার্থী পড়ালেখা করছে। এ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী অনুপাতে ৬-৭ জন শিক্ষক থাকার কথা থাকলেও সরকার নিয়োগ দিয়েছে মাত্র চারজন। ওই চার শিক্ষক দিয়ে শিক্ষার্থীর পড়াশোনার চাপ কুলাতে না পেরে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম নিজের অর্থায়নে একজন গেস্ট শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন। তবে এ প্রতিষ্ঠানে প্রধান শিক্ষকের স্থলে একজন ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক দিয়ে শিক্ষাকার্যক্রম চালানো হচ্ছে বলেও শিক্ষকরা জানান। ফলে ওই স্কুলের শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করতে না পারায় মেধা বিকাশে অন্তরায় সৃষ্টি হচ্ছে। শিশুরা অভিযোগ করেন, সারাবছরই এ খেলার মাঠে বৃষ্টির পানি জমে থাকে। ফলে স্কুলের বারান্দা ছাড়া অন্য কোথাও দাঁড়াবার কোনো সুযোগ নেই।

গত কয়েক বছর আগে স্কুলের দক্ষিণ মাঠে কোনাবাড়ী ডিগ্রি কলেজ ও আ ক ম মোজাম্মেল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের বহুতল ভবন করাসহ একটি সড়ক নির্মাণ করার কারণে মাঠের উত্তর দিকে উঁচু হয়ে পড়েছে। ফলে বৃষ্টির জলাবদ্ধতার পানি নিচু এলাকায় নামতে না পারায় এ খেলার মাঠে পানি জমেই থাকছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ সড়কটি নির্মাণের সময় একটি পানি নামানোর জন্য পাইপ দেওয়া হলে হয়তো খেলার মাঠে পানি জমে থাকত না আর কাদার সৃষ্টি হতো না। পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী হৃদয় আহম্মদ, সোমাইয়া আক্তার, চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলাম জানায়, দীর্ঘদিন ধরে আমাদের স্কুলের মাঠে বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। আমরা লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা করতে পারছি না। আমাদের মাঠটি উঁচু করে দিলে আমরা শিক্ষার্থীরা অনায়াসে খেলাধুলা করতে পারব।

স্কুলের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষিকা নাজমা আক্তার বলেন, মাঠের পানি আর কাদা সরানোর জন্য কোনো ব্যবস্থা না থাকায় সারাবছরই মাঠে পানি জমে কাদা হয়ে রয়েছে। তবে খেলার মাঠটি সংস্কারের জন্য সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তাদের লিখিত আকারে অবহিত করেছি। কিন্তু কোনো ফল পাওয়া যায়নি।

ওই স্কুলের সভাপতি রেজাউল করিম বলেন, খেলার মাঠের সংস্কার কাজ ও জলাবদ্ধতার পানি সরানোর জন্য মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রের কাছে লিখিতভাবে একটা বরাদ্দ পেয়েছি। এ বরাদ্দ পেলেই মাঠের সমস্যা সমাধান করা হবে।