ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের অভিযোগ

প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০১৯

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার জাগীর মেঘশিমুল এলাকায় একটি চক্র ধলেশ্বরী নদীর তীর ঘেঁষে ব্যক্তিমালিকানাধীন জায়গা থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মামুন সরদারের কাছে জমির মালিক দাবিদার দুই ভাই লিখিত অভিযোগ করেছেন।

লিখিত অভিযোগ এবং ভুক্তভোগী সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলার জাগীর মেঘশিমুল মৌজায় ১৭২ নম্বর খতিয়ানে ৫৯৪, ৬৮৯, ৬৮৬ এবং ৬৮৭ নম্বর আরএস দাগে তাদের ২১৫ শতক জমির মালিক ঢাকার ধামরাই উপজেলা আনন্দনগর গ্রামের দুই ভাই কুদ্দুস খান এবং মজিদ খান। জমিটি বর্তমানে ধলেশ্বরী নদীর পাড়ে রয়েছে। ওই জমিতে বেশ কিছু দিন ধরে একটি চক্র অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে মাটি উত্তোলন করছে। ওই সব মাটি ফেলা হচ্ছে বাণিজ্যিকভাবে আশপাশের নিচু জমিতে।

জমির মালিক কুদ্দুস খান বলেন, বালু উত্তোলনের খবর পেয়ে সম্প্র্রতি তারা দুই ভাই ঘটনাস্থলে গিয়ে বালু উত্তোলনে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। তবে মাটি উত্তোলনকারীরা তাদের নানা রকম হুমকি দেন। এ কারণে প্রতিকার পেতে তারা উপজেলা প্রশাসনে লিখিত অভিযোগ করেছেন। তিনি অভিযোগ করেন, যারা মাটি উত্তোলন করছেন তারা ক্ষমতাসীন দলের লোকজন। তাদের মধ্যে জেলা শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম রয়েছেন।

বুধবার সরেজমিন দেখা গেছে, দু'জন শ্রমিক ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছেন। এরপর পাইপের মাধ্যমে এসব বালু আশপাশের নিচু জায়গায় ভরাট করা হচ্ছে।

স্থানীয় জাগীর মেঘশিমুল এলাকার কয়েকজন কৃষক বলেন, ড্রেজার দিয়ে মাটি কাটার কারণে তাদের জমিসহ আশপাশের জমিও ধসে পড়ার উপক্রম হয়েছে। যারা মাটি উত্তোলন করছেন তারা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের কিছুই বলা যাচ্ছে না। অবৈধ ড্রেজার বন্ধ না করা হলে তাদের জমি বর্ষার স্রোতে নদীতে চলে যাবে।

অভিযোগের বিষয়ে সাইফুল ইসলাম বলেন, যারা অভিযোগ করেছেন তারা তিন ভাই। অভিযোগকারী দুই ভাইয়ের অপর ভাই রশিদ খানের কাছ থেকে ওই জায়গা তিনি কিনে নিয়েছেন। এখন ওই জায়গা থেকে তিনি ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করছেন।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন সরদার বলেন, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন। পুনরায় বালু উত্তোলন করা হলে সংশ্নিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।