'জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবসাক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে'

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৯      

জাবি সংবাদদাতা

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেছেন, 'এটা স্পষ্ট যে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন একদিকে মহাপরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা চালাচ্ছে, অন্যদিকে গাছ কাটাও চলছে। প্রশাসন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নকে বাণিজ্যে রূপান্তর করেছে। তারা বিশ্ববিদ্যালয়কে একটা ব্যবসাক্ষেত্রে পরিণত করেছে।' রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে গঠিত নতুন প্ল্যাটফর্ম 'দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর'র ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল হয়। জাবির অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পে লুটপাট, অপরিকল্পনা ও প্রকৃতি ধ্বংসের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

দর্শন বিভাগের এ অধ্যাপক বলেন, একদিকে মহাপরিকল্পনা পর্যবেক্ষণের জন্য বিশেষজ্ঞ কমিটি করা হলো, অন্যদিকে গাছ কাটা অব্যাহত রাখা হলো। তাদের একগুঁয়েমি ও ক্ষমতার স্বৈরাচারী প্রকাশ আমাদের সামনে স্পষ্ট হয়েছে। তড়িঘড়ি করা এবং দ্রুত এই উন্নয়ন কাজ শুরু করা। তারা কোনোভাবেই এটা স্থগিত রেখে নতুন জায়গায় স্থানান্তর করবে না। ফলে আমাদের লুটপাটের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে এবং দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। এ সময় নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা পায়ে দলিয়ে বিপুল অঙ্কের টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে আসা এবং খরচ করার পাঁয়তারা করছে। গুটিকয়েক স্বার্থান্বেষী, মাস্তান এবং লুটেরা মানুষের হাতে বিশ্ববিদ্যালয়কে জিম্মি করে আমরা নিশ্চিন্তে থাকতে পারি না।

সমাবেশে জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আশিকুর রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের মাথা উপাচার্য। সেই উপাচার্য স্বয়ং অর্থ কেলেঙ্কারিতে জড়িত। সংবাদপত্রের মাধ্যমে যে অভিযোগ এসেছে, এই অভিযোগের বিচার বিভাগীয় তদন্ত এবং সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করতে হবে। সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট জাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মাদ দিদার, ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সদস্য রাকিবুল রনি, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের জাবি শাখার সমন্বয়ক আবু সাইদ প্রমুখ।