এনটিআরসিএর সুপারিশপ্রাপ্ত ৫ শিক্ষককে নিয়োগ না দেওয়ার অভিযোগ

প্রকাশ: ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার মাঝগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়ে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) সুপারিশপ্রাপ্ত পাঁচ শিক্ষককে নিয়োগ না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। সুপারিশপ্রাপ্তরা গত তিন দিন ধরে বিদ্যালয়ে ঘুরলেও প্রধান শিক্ষক তাদের ফিরিয়ে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সুপারিশপ্রাপ্ত পাঁচ শিক্ষক হলেন- গণিত বিষয়ে হোসনেয়ারা খাতুন, শরীরচর্চা বিষয়ে শামীমা আক্তার, বাংলা বিষয়ে জান্নাতুল আক্তার, ব্যবসায় শিক্ষা বিষয়ে উজ্জ্বল কুমার দাস এবং ইংরেজি বিষয়ে মুকুল হোসেন।

তারা বলেন, গত মঙ্গলবার সুপারিশপত্র নিয়ে পাঁচজন একসঙ্গে বিদ্যালয়ে গিয়ে প্রধান শিক্ষক রুস্তম আলীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তিনি বুধবারে যেতে বললে তারা আবার বুধবার যান। সেদিন তিনি বলেন, একটা সমস্যা আছে তাই নিয়োগ দেওয়া সম্ভব হবে না। বিষয়টি এনটিআরসিএ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করলে তাদের পরামর্শ দেওয়া হয় প্রধান শিক্ষক কেন নিয়োগ দিতে পারবেন না সে বিষয়ে লিখিত প্রত্যয়ন নিয়ে এনটিআরসিএকে জানাতে। কিন্তু প্রধান শিক্ষক উল্টো তাদের ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে লিখিত দেওয়ার নির্দেশ দেন। যেখানে লেখা থাকবে 'আমরা স্বেচ্ছায় নিয়োগ নিচ্ছি না।' পরে তারা লিখিত না দিয়ে ফিরে যান। বৃহস্পতিবার ফের বিদ্যালয়ে গেলে প্রধান শিক্ষক এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান বরাবর একটি লিখিত দেন, যাতে লেখা রয়েছে চাহিদা দিতে গিয়ে তিনি ভোকেশনালের পরিবর্তে ভুলে জেনারেল শাখা উল্লেখ করে ফেলেছেন। তাই নিয়োগ দিতে পারছেন না। কিন্তু সুপারিশপ্রাপ্ত পাঁচটি পদ জেনালের শাখার। এ ধরনের পদ ভোকেশনাল শাখায় নেই।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক রুস্তম আলী সাংবাদিকদের বলেন, সুপরিশপ্রাপ্তদের সঙ্গে ফয়সালা হয়ে গেছে। তারা স্বেচ্ছায় ফিরে গেছেন। তবে কী ফয়সালা হয়েছে জানতে চাইলে তিনি তা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন।