সঞ্চয়ের টাকা না পেয়ে ইউএনও অফিস ঘেরাও

প্রকাশ: ২০ মে ২০১৯

ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি

দুই বছর ধরে মাসিক দুইশ' টাকা হারে সঞ্চয় করেছেন তালুক শিমুলবাড়ী গ্রামের মজিয়া বেগম। ২৪ মাসে লাভসহ ওই টাকার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে চার হাজার নয়শ' এগার টাকা। তিনি বাংলাদেশ সোস্যাল ডেভেলপমেন্ট একাডেমি (বিএসডিএ) ও ডেভেলপমেন্ট পার্টনার (ডিপি) প্রকল্পের তালিকাভুক্ত সদস্য ছিলেন। কিন্তু প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার পাঁচ মাস অতিবাহিত হলেও অফিসে বার বার ধরনা দিয়েও টাকা পাচ্ছেন না তার মত দুই শতাধিক হতদরিদ্র নারী। তারা গতকাল রোববার ইউএনওর কার্যালয় ঘেরাও করেছে।

মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের আওতায় বিএসডিএ ও ডিপি নামের দুটি এনজিওর বাস্তবায়নে ১ জানুয়ারি ২০১৭ ফুলবাড়ী উপজেলায় দুই বছর মেয়াদি ভিজিডি (ভার্নারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট) প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হয়। উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের পাঁচ হাজার ৭৯৯ জন হতদরিদ্র নারীকে তালিকাভুক্ত করা হয়। তাদের জনপ্রতি ৩০ কেজি চাল দেওয়ার কর্মসূচি আওতায় নেওয়া হয়। সঙ্গে হাতে দেওয়া হয় পাস বই। ফুলবাড়ী সোনালী ব্যাংক শাখায় মাসিক ২০০ টাকা করে সঞ্চয় জমা নেওয়া হয়। এ প্রকল্পের সদস্যরা ২ কোটি ৬৫ লাখ ৫৮ হাজার ৩২০ টাকা জমা করেন দুই বছরে। কিন্তু প্রকল্পের মেয়াদ শেষে সঞ্চয়ের টাকা দেওয়ায় কথা থাকলেও বিভিন্ন অজুহাতে সোনালী ব্যাংক ফুলবাড়ী শাখা থেকে ওই টাকা আবার ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংক কুড়িগ্রাম শাখায় স্থানান্তর করা হয়।

তালুক শিমুলবাড়ী গ্রামের মজিয়া বেগম জানান, তাদের প্রত্যেকের ৪ হাজার ৯১১ টাকা করে জমা থাকলেও দিনের পর দিন ঘুরে তারা টাকা পাচ্ছেন না। ফুলবাড়ী ইউএনও মোছা. মাসুমা আরেফিন বলেন, টাকা স্থানান্তরের ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ছুটিতে আছেন। তিনি আসলে দ্রুত সময়ের মধ্যে সঞ্চয়ের টাকা প্রদানের ব্যবস্থা করা হবে।