পদ্মায় বাড়ছে পানি ভাঙছে পাড়

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০১৯

আব্দুল লতিফ মিঞা, বাঘা (রাজশাহী)

রাজশাহীর বাঘায় পদ্মার পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভাঙছে পদ্মার পাড়। ধসে পড়ছে মাটি। ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে পাকুড়িয়া ইউনিয়নের কিশোরপুর ও গোকুলপুর এলাকায়। এরই মধ্যে গ্রাম দুটির আড়াই কিলোমিটার ভাঙনের কবলে পড়েছে। এতে জমি ও গাছপালা নদীতে চলে গেছে। পদ্মার পাড় থেকে ৪০-৫০ গজ দূরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। উদ্যোগের অভাবে অরক্ষিত রয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের মূল বাঁধও।

সরেজমিন মঙ্গলবার ভাঙন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, কিশোরপুর গ্রামের তারুর বাড়ির পশ্চিমের বাঁধে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ব্লক বসানো আছে। আর ভাঙন শুরু হয়েছে তারুর বাড়ির পূর্বে থেকে গোকুলপুর খেয়াঘাট এলাকার তোজাম্মেল মাস্টারের বাড়ি পর্যন্ত। ভাঙন ঠেকাতে বছর বছর বাঁশের বেড়া দিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নদীর তীর সংরক্ষণের কাজ করা হয়েছে। তারপরও নদীভাঙনের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না এলাকাগুলো।

স্থানীয় আফজাল জানান, গত ১২ বছরে পদ্মার ভাঙনে এসব এলাকার সহস্রাধিক বাড়িসহ পাঁচটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাট-বাজার, বিজিবি ক্যাম্প ও কয়েক হাজার বিঘা আবাদি-অনাবাদি জমি চলে গেছে নদীতে। ভাঙনে গৃহহারা হয়েছে হাজারো পরিবার।

২০০০ সালে মীরগঞ্জ, আলাইপুর হয়ে গোকুলপুর, কিশোরপুর পর্যন্ত ৭ কিলোমিটার এলাকায় ব্যাপক ভাঙন দেখা দেয়। তারপর থেকেই প্রতিবছর ভাঙতে থাকে পদ্মা। ২০০৪ সালে পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙনকবলিত জায়গাগুলোতে বালুর বস্তা দিয়ে তা ঠেকানোর পর ২০০৫ সালে উদয়নগর বিজিবি ক্যাম্পসহ চৌমাদিয়া গ্রামটি রক্ষার জন্য ব্লক বসায়। সেই ব্লক বসানোর কয়েকদিন পর সেগুলো নদীতে ভেসে যায়। পাকুড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফকরুল হাসান বাবলু বলেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম (বাঘা-চারঘাট) ভাঙন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেছিলেন। তার বাস্তবায়ন হয়নি। ইউএনও শাহিন রেজা জানান, জেলা প্রশাসককে জানিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মোজাম্মেল হক জানান, বাঘা-চারঘাটের নদী-তীরবর্তী চার হাজার ৩০০ মিটার ব্লক বসানোর কাজের জন্য প্রস্তাবিত একটি মেগা প্রকল্প একনেকে অনুমোদনের জন্য পাঠানো আছে। অনুমোদন পেলেই কাজ শুরু করা হবে।