এক দিনে পেঁয়াজের দাম বাড়ল কেজিতে ৩৫ টাকা

প্রকাশ: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

এবিএম ফজলুর রহমান, পাবনা

দেশের সর্ববৃহৎ উৎপাদনকারী জেলা পাবনার সর্বত্র পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি ৩০ থেকে ৩৫ টাকা বেড়েছে। পেঁয়াজের এই ঝাঁজে সাধারণ মানুষের মধ্যে হা-হুতাশ বেড়ে গেছে। 'ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করেছে' এই মর্মে খবর প্রচার হওয়ার পরদিনই পাবনাসহ সারাদেশে এ রকম নজিরবিহীন দাম বাড়ার ঘটনা ঘটল।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পাবনার বড় বাজার পরিদর্শন করে জানা যায়, সেখানে খুচরা প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৮৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে, যা সোমবারও ছিল ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। একই পেঁয়াজ চলতি বছরের আগস্টের শেষের দিকে ছিল ৩০ থেকে ৩৫ টাকা কেজি।

ভাই ভাই সবজি ভান্ডারের মালিক মো. সিদ্দিক সমকালকে বলেন, মঙ্গলবার সকালে আমি পাবনার আরিফপুর হাট থেকে তিন হাজার ২০০ টাকা মণ দরে কৃষকের কাছ থেকে পেঁয়াজ কিনেছি। এখন আমার পরিবহন খরচ বাদ দিয়ে কমপক্ষে সাড়ে তিন হাজার টাকা মণ বা ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে হবে।

পাবনা ভান্ডারের মালিক নজরুল ইসলাম তুফান বলেন, ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করার সঙ্গে সঙ্গে কৃষক পর্যায়ে পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আমাদের কী করার আছে? আমরা বেশি দামে কিনছি, তাই বেশি দামে বিক্রি করছি।

এদিকে পাবনার সবেচেয়ে পেঁয়াজের বড় বেড়া করমজা হাটে গতকাল খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হাটে প্রচুর পেঁয়াজ উঠেছে। ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের অনেক বড় বড় পাইকার এসেছেন পেঁয়াজ কিনতে। ঢাকার কারওয়ান বাজারের মজিদ ব্যাপারী বিভিন্ন কৃষকের কাছ থেকে তিন হাজার ২০০ থেকে তিন হাজার ৩০০ টাকা দরে ৩০০ মণ পেঁয়াজ কিনেছেন। এ রকম অনেক পাইকার দাম বাড়ার পরও পেঁয়াজ কিনছেন।

কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ী মজিদ ব্যাপারী সাংবাদিকদের বলেন, 'ব্যবসা করি, তাই দাম বাড়লেও জিনিস কিনুন লাগব। তাই কিনতাছি।'

পাবনা কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়, দেশের সবচেয়ে বেশি পেঁয়াজ উৎপাদন হয় পাবনার বেড়া, সুজানগর ও সাঁথিয়া উপজেলায়। দেশে মোট পেঁয়াজ উৎপাদন হয় ২৬ লাখ ৩৫ হাজার ৪১২ টন। এর মধ্যে শুধু পাবনায় উৎপাদন হয় ছয় লাখ ৪৫ হাজার ৫৮০ টন। এর পরও ৯ থেকে ১০ লাখ টন পেঁয়াজ বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়।

দাম বাড়ার প্রবণতা হলে কৃষকরাও বেশি লাভের আশায় ঘরের মধ্যে মাচা তৈরি করে পেঁয়াজ মজুদ করে রাখেন।

পাবনা চেম্বারের সভাপতি মো. সাইফুল আলম স্বপন চৌধুরী বলেন, পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণ হয় চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ এবং ঢাকার কারওয়ান বাজার থেকে। ওই ব্যবসায়ীরা যে দাম নির্ধারণ করে দেন, পাইকাররা হাট অথবা কৃষকের কাছ থেকে সেই দামে পেঁয়াজ কেনেন। তা ছাড়া ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করায় সুবিধাবাদীরা পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছে।

পাবনা জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ সমকালকে বলেন, পাবনা জেলা বা দেশে পেঁয়াজের কোনো ঘাটতি নেই; তাই মূল্যবৃদ্ধি কোনোভাবেই কাম্য নয়। কাল থেকে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির কারণ অনুসন্ধানে বাজার মনিটর করা হবে।