রাজারহাটে এক জমিতে একবার ধানের চারা লাগিয়ে দু'বার ফলন পেলেন অশ্বিনী ও অশোক কুমার নামের দুই কৃষক। প্রথম পর্যায়ে ধান কাটার পর মাত্র ৪৫ দিনের মধ্যে আবার দ্বিতীয় পর্যায়ে ভালো ফলন পেয়ে তারা এলাকায় চমক লাগিয়েছেন। বৃহস্পতিবার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শম্পা আক্তারসহ কৃষি সম্প্রসারণ অফিসের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে দ্বিতীয় পর্যায়ের ফসল কাটা হয়।

উপজেলার পশ্চিম দেবত্তর গ্রামে কৃষক অশ্বিনী কুমার ও তার ভাই অশোক কুমার চলতি বোরো মৌসুমে তাদের ১৫ একর জমিতে বোরো চাষ করেন। গত মে মাসের শুরুতে প্রথম পর্যায়ে ফসল কেটে ঘরে তোলেন। এর ৮-১০ দিনের মধ্যে জমিতে ধানের নাড়া থেকে আবার নতুন গাছ গজিয়ে ধানক্ষেত সবুজ হয়ে ওঠে। খবর পেয়ে ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা আতাউর রহমান সরেজমিন যান এবং ওই ক্ষেতটিকে ধানের রেটুন ফসল উৎপাদন প্লট হিসেবে নির্ধারণ করেন। এ ছাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শম্পা বেগম ও উপসহকারী কর্মকর্তা আতাউর রহমান ওই কৃষকদের ধানের নাড়াগুলো নষ্ট না করে রেটুন পদ্ধতিতে সামান্য ইউরিয়া ও টিএসপি সার ছিটিয়ে নতুন গজিয়ে ওঠা ধানগাছের পরিচর্যা করার পরামর্শ দেন। বৃহস্পতিবার ওই ক্ষেত থেকে দ্বিতীয় দফা ফসল কাটা শুরু করেন তারা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শম্পা আক্তার বলেন, একফসলি জমিতে বোরো ফসল উৎপাদনের পর দুই আড়াই মাস জমি পড়ে থাকত। এরপর পানি বাড়লে তারা ওই জমিতে মাছ চাষ করতেন। এখন থেকে তারা এই পদ্ধতিতে একবার ধান বীজ রোপণ করে দু'বার ফসল উৎপাদন করতে পারবেন। এতে দ্বিগুণ ধান ও খড় পাবেন কৃষক।

বিষয় : ধান উৎপাদন

মন্তব্য করুন