অবশেষে করোনার টিকা নিলেন 'মৃত' ফাতেমাতুজ জোহুরা। তবে এ জন্য তাকে সাত মাস প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরতে হয়েছে। জাতীয় পরিচয়পত্রে নামের আগে 'মৃত' লেখা থাকায় এর আগে তিনি জাতীয় ও স্থানীয় কয়েকটি নির্বাচনে ভোট দিতে পারেননি।

ফাতেমাতুজ জোহুরা (৬৯) ঈশ্বরদীর স্কুলপাড়া শিশুবাগান এলাকার মৃত আবুল হোসেনের স্ত্রী। নির্বাচন অফিসের অনলাইন সার্ভারে সমস্যার কারণে তার নামের আগে 'মৃত' শব্দটি জুড়ে দেওয়া হয়। এ শব্দটি সংশোধন করে নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে তার সাত মাস সময় লেগেছে। গত ৩০ মে 'ইসির সার্ভারে তারা মৃত' শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ হয় সমকালে। ওই প্রতিবেদনের পর জাতীয় পরিচয়পত্র থেকে তার নামের আগে 'মৃত' শব্দটি সংশোধন করে নির্বাচন কমিশন। এ বিষয়ে উদ্যোগী ভূমিকা পালন করেন ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিএম ইমরুল কায়েস।\হইউএনও বলেন, সমকালে প্রতিবেদন প্রকাশের পর উপজেলা নির্বাচন অফিসারকে দ্রুত বিষয়টি সমাধন করতে বলি। শেষ পর্যন্ত সংশোধিত জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে ফাতেমাতুজ জোহুরা টিকা নিতে পেরেছেন জেনে আমি খুশি।ফাতেমাতুজ জোহুরা জানান, টিকা নেওয়া জরুরি হলেও জাতীয় পরিচয়পত্রে 'মৃত' হিসেবে উল্লেখ থাকায় টিকাও গ্রহণ করতে পারছিলাম না। এ বিষয়ে ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাচন অফিসার রায়হান কুদ্দুস বলেন, দেরিতে হলেও বিষয়টি সমাধান হয়েছে।

মন্তব্য করুন