ঠাকুরগাঁওয়ের মিলি চক্রবর্তীকে পিটিয়ে ও আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার মামলার ভিসেরা প্রতিবেদনে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করে সিআইডি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, মিলি চক্রবর্তীর মৃত্যুর কারণ তাদের কাছে এখন স্পষ্ট। মিলির ভিসেরা রিপোর্ট তাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। এই রিপোর্ট অনুযায়ী তারা মামলার তদন্ত আরও বেগবান করতে পারবেন। ইতোমধ্যে সন্দেহভাজন দু'জনকে গ্রেপ্তার করেছেন তারা।

গত ৮ জুলাই সকালে শহরের মোহাম্মদ আলী সড়কের পাশে নিজ বাসার গলি থেকে মিলি চক্রবর্তীর পোড়া মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। বিষয়টি নিয়ে শহরজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এর দু'দিন পর পুলিশ বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করে। ৫ আগস্ট মামলাটি সিআইডির কাছে হস্তান্তর করা হয়।\হসিআইডির তদন্তে মিলির ছেলে ও শহরের বাসিন্দা বিএনপি নেতা আমিনুল ইসলাম সোহাগের জড়িত থাকার বিষয়টি উঠে আসে। পরে তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

মন্তব্য করুন