শীতকাল, বৃষ্টি বাদল নেই। এরপরও গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ পৌর সড়কটি পানি আর কাদায় একাকার। এ অবস্থায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে সড়কটি দিয়ে। পানি নিস্কাশনের লালাটি বন্ধ থাকায় এ দুর্ভোগ বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। তবে কবে মেরামত হবে পানি নিস্কাশন নালা, তা কেউ জানেন না। চরম দুর্ভোগে পথচারীসহ যানবাহন। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছে বেশি।

উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পৌরসভার মীরগঞ্জ বাজারের ভেতর দিয়ে রংপুরগামী সড়কটির প্রায় ৩০০ মিটার পর্যন্ত পানি নিস্কাশন

নালাটি দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে। সে কারণে বাসাবাড়ি থেকে নেমে আসা পানি সড়কে জমে কাদায় পরিণত হয়েছে। বর্তমানে সড়কটি দিয়ে চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে। ওই এলাকার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের মালিকরাও চরম বিপাকে পড়েছেন। ময়লা-আবর্জনা, নোংরা পানির গন্ধে এলাকার পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হয়ে পড়েছে।

এলাকায় অবস্থিত জনতা ব্যাংকে টাকা তুলতে আসা গ্রাহক রেজাউল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিনের সমস্যা এটি। অথচ আজও সেটি মেরামত করা হয়নি। মীরগঞ্জ বাজারটি পৌরসভার একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। তিনি বলেন, কাদা এবং পানির কারণে ব্যাংকে প্রবেশ করা যাচ্ছে না।

স্থানীয় ব্যবসায়ী জানান, কবে এ সমস্যার সমাধান হবে, তা আল্লাহ জানেন। হাঁটু পানি জমে থাকায় এবং কাদার কারণে এই এলাকায় এখন কোনো গ্রাহক আসতে চান না। এ অবস্থায় দ্রুত পানি নিস্কাশনের নালাটি মেরামত দরকার।

স্কুলশিক্ষার্থী লাকী বেগম

জানায়, পানি এবং কাদার কারণে প্রতিদিন জামা-কাপড় নষ্ট

হচ্ছে। তাছাড়া দুর্ঘটনার শিকার

হচ্ছে অনেক শিক্ষার্থী।

পৌর কাউন্সিলর ছামিউল ইসলাম জানান, সড়কটি দিয়ে পানি নিস্কাশনের পথ নেই। তাই এ সমস্যা দেখা দিয়েছে। তবে পানি নিস্কাশন নালার কাজ চলছে। শিগগিরই নালা নির্মাণকাজ শেষ করা হবে। তখন আর এ সমস্যা থাকবে না।

পৌর মেয়র আব্দুর রশিদ রেজা সরকার ডাবলু জানান, ৪-৫ বছর ধরে এ রাস্তাটি নিয়ে এ সমস্যা চলছে। আমি পৌর মেয়র নির্বাচিত হওয়ার আগে ওই এলাকায় পানি নিস্কাশনের জন্য নালা নির্মাণের টেন্ডার হয়েছে। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের টালবাহানার কারণে নালা নির্মাণে বিলম্ব হচ্ছে। তবে অল্প সময়ের মধ্যে নালা নির্মাণ হয়ে যাবে। তখন আর সমস্যাটি থাকবে না।

মন্তব্য করুন