ট্রাম্পের হস্তক্ষেপ বন্ধে স্বাক্ষর অভিযান

প্রকাশ: ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ চায় না ভেনিজুয়েলার বাসিন্দারা। দেশটিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অযাচিত হস্তক্ষেপ বন্ধের দাবি জানিয়ে গতকাল শুক্রবার রাজধানী কারাকাসে স্বাক্ষর অভিযান শুরু করেছেন প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর সমর্থকরা। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের পাঠানো ত্রাণবোঝাই লরি ঢুকতে দিচ্ছে না ভেনিজুয়েলার সেনাবাহিনী। সেগুলো কলম্বিয়ার সীমান্তে আটকা পড়েছে। মাদুরোর শঙ্কা, ওই লরি বোঝাই হয়ে এসে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী আগ্রাসন চালাতে পারে। খবর এএফপি ও বিবিসির।

রাজধানী কারাকাসের বলিভার স্কয়ারে শুক্রবার সকাল থেকেই জড়ো হচ্ছেন প্রেসিডেন্ট মাদুরোর সমর্থকরা। তারা স্বাক্ষর অভিযানে অংশ নিচ্ছেন। এক কোটি মানুষের স্বাক্ষর সংগ্রহ করবেন তারা। তাদের দাবি একটাই, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ভেনিজুয়েলায় হস্তক্ষেপ বন্ধ করুক। মাদুরো সরকারকে উৎখাতের ষড়যন্ত্র তারা মেনে নেবে না।

আগের দিন প্রেসিডেন্ট মাদুরো অভিযোগ করেছেন, ট্রাম্প প্রশাসন ভেনিজুয়েলায় আগ্রাসনের অপচেষ্টায় লিপ্ত। তারা সরকারের প্রতিপক্ষ দাঁড় করিয়ে ক্যু ঘটানোর চেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি ট্রাম্পের হস্তক্ষেপপ্রবণ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে ১০ মিলিয়ন স্বাক্ষর সংগ্রহের ডাক দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পাঠানো ত্রাণ ঢুকতে দিচ্ছে না সেনাবাহিনী :যুক্তরাষ্ট্রের পাঠানো ত্রাণবোঝাই লরি ঢুকতে পারছে না ভেনিজুয়েলায়। ওই লরিগুলোতে খাবার ও ওষুধ পাঠিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। দেশটিতে প্রবেশের মুখে তিয়েনদিতাস সেতুর মুখে জমা হয়েছে একের পর লরি, আর লরিগুলো ঢুকতে বাধা দেওয়ার জন্য অপর পাশে অবস্থান নিয়েছে ভেনিজুয়েলার সেনাবাহিনী। তিয়েনদিতাস সেতু সেনাবাহিনী বন্ধ করে রাখায় সেখানেই আটকে আছে ত্রাণবাহী লরিগুলো।

নির্বাচনী কারচুপির অভিযোগ আর অর্থনৈতিক সংকট ভেনিজুয়েলার জনগণকে তাড়িত করেছে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে। বিক্ষোভের সুযোগে ২৩ জানুয়ারি নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুইদো। গত রোববার পশ্চিমসমর্থিত গুইদো ঘোষণা দেন, ভেনিজুয়েলিয়ানদের সহায়তা দেওয়ার জন্য তিনি আন্তর্জাতিক ত্রাণ সহযোগীদের নেটওয়ার্ক বানাবেন। তার অনুরোধে ভেনিজুয়েলার জন্য ত্রাণ পাঠানোর কথা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

নিকোলাস মাদুরো বারবারই ত্রাণ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে আসছেন। যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তাকে সম্মানহানির চেষ্টা আখ্যা দিয়ে তিনি বলেছেন, ভেনিজুয়েলার মানুষ ভিক্ষুক নয়। এ ছাড়া এই পথ খুলে দিলে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী তাকে উৎখাত করার চেষ্টা করবে বলেও দাবি করেন তিনি। মাদুরো বলেন, কেউ প্রবেশ করবে না, কেউই আগ্রাসন চালাতে পারবে না।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ভেনিজুয়েলাকে সীমান্ত খুলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, মাদুরো সরকারকে অবশ্যই না খেয়ে থাকা মানুষের কথা ভাবতে হবে। ভেনিজুয়েলার বেশ কয়েকজন নেতাও ত্রাণ প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।