তৃণমূল ছেড়ে বিজেপির আশ্রয়ে হেভিওয়েটরা

প্রকাশ: ১৫ মার্চ ২০১৯      

রক্তিম দাশ, কলকাতা

দলত্যাগের শুরুটা হয়েছিল মমতার সেকেন্ড ইন কমান্ড সাবেক রেলমন্ত্রী মুকুল রায়কে দিয়ে। এর পর তারই হাত ধরে লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে একে একে পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন হুমায়ুন কবীর, সৌমিত্র খাঁ, অনুপম হাজরা, ভারতী ঘোষের মতো হেভিওয়েটরা। এবার রাজ্যের ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিং যোগ দিলেন গেরুয়া শিবিরে। গতকাল বৃহস্পতিবার নয়াদিল্লিতে বিজেপির সদর দপ্তরে গিয়ে মুকুল রায় ও কৈলাস বিজয়বর্গীর উপস্থিতিতে বিজেপিতে যোগ দেন তিনি। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী না করায় ক্ষোভে দল ছাড়লেন তিনি।

বিজেপি সূত্রের দাবি, আগামী কয়েকদিনে আরও বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট নেতা তৃণমূল, কংগ্রেস ও বাম জোট থেকে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেবেন। এর মধ্যে রয়েছেন, গাড়লিয়া পৌরসভার প্রধান ও নোয়াপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক সুনীল সিং, কংগ্রেসের পুরুলিয়ার বিধায়ক সুদীপ, বাঘমুণ্ডির বিধায়ক নেপাল মাহাতোসহ একাধিক সাংসদ-বিধায়ক।

গত মঙ্গলবার তৃণমূলের লোকসভার প্রার্থী ঘোষণার পরই বিজেপিতে যোগ দেওয়ার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন অর্জুন সিং। তাকে এবার টিকিট দেননি তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা। ওইদিন রাতেই অনুগামীদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল তাকে প্রার্থী না করায় বৈঠকে কর্মীদের সামনেই দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন অর্জুন। বুধবার রাতেই দিল্লি পৌঁছেন তৃৃণমূলের এ দাপুটে নেতা। তার সঙ্গে যান বারাকপুর পৌরসভার বেশ কয়েকজন তৃণমূল কাউন্সিলর। দিল্লি রওনার আগে দীর্ঘক্ষণ মুকুল রায়ের সঙ্গে বৈঠক হয় তার।

গতকাল দুপুরে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীসহ একাধিক বিজেপি নেতার উপস্থিতিতে মোদির দলে যোগ দেন ভাটপাড়ার এ তৃণমূল বিধায়ক। যোগদানের পর অর্জুন সিং বলেন, পাকিস্তানে বিমান হামলা নিয়ে তৃণমূলনেত্রীর বক্তব্যের কারণেই তিনি বিজেপিতে যোগদান করতে বাধ্য হয়েছেন।

অর্জুন বলেন, 'নরেন্দ্র মোদি দেশের জন্য অনেক কিছু করেছেন। অথচ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশ্ন তুলেছেন যে, জঙ্গিদের দেহ কোথায়? কেমন নেত্রীর সঙ্গে কাজ করছিলাম আমি? যার জন্য দেশ সবার ওপরে নয়, শুধু নিজের ভোটই শেষ কথা। অর্জুনের অভিযোগ, তৃণমূলের 'মা-মাটি-মানুষ' আদর্শ বদলে 'মানি-মানি-মানি' হয়ে গেছে।

অন্যদিকে বারাকপুর আসনের তৃণমূল প্রার্থী দিনেশ ত্রিবেদী অর্জুন সিংয়ের দলবদলে মোটেই চিন্তিত নন। তিনি বলেন, তিনি যে দলেই যান তার প্রভাব নির্বাচনে পড়বে না।

এদিকে, দুপুরে দলবদলের পরই ভাটপাড়ায় তৃণমূলের দলীয় অফিস দখল করে নেন অর্জুন সিংয়ের সর্মথকরা। বিজেপিতে যোগদানের পরই তারা গেরুয়া আবির মেখে উল্লাস করতে শুরু করেন। অন্যদিকে, বিজেপি সূত্রের খবর, অর্জুন সিংয়ের পর ভাটপাড়া পৌরসভার ২২ জন কাউন্সিলর যোগ দিতে চলেছেন বিজেপিতে। মোট ৩৫ জনের মধ্যে ২২ জন বিজেপিতে যোগ দিলে পৌরসভাও হাতছাড়া হবে তৃণমূলের।