চ্যালেঞ্জে মিমি-নুসরাত

প্রকাশ: ২০ মে ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

ভারতের লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের ৯টি আসনে ভোট অনুষ্ঠিত হলো গতকাল রোববার। নির্বাচনের শেষ ধাপে ভাগ্য পরীক্ষার মুখোমুখি হয়েছেন চিত্রনায়িকা মিমি চক্রবর্তী ও নুসরাত জাহান। তৃণমূলের হয়ে লড়েছেন এ দুই নায়িকা। ভোটের দিন সকালে এক টুইটে নুসরাত বলেন, ভোট আমাদের মৌলিক অধিকার। আপনারা কেউ বাড়িতে বসে থাকবেন না। সবাই ভোট দেবেন। আমিও যাচ্ছি। ভোট দেওয়ার পর আঙুলে কালি লাগানো একটি ছবিও শেয়ার করেছেন তিনি। খবর এনডিটিভি ও আনন্দবাজারের।

পশ্চিমবঙ্গে লোকসভার আসন ৪২টি। আগে ছয় দফায় ভোট হয়েছে ৩৩টি আসনে। গতকাল হয়েছে বাকি ৯টি আসনের ভোট। সব মিলিয়ে প্রার্থীসংখ্যা ১১১।

যাদবপুর আসনে এবার তৃণমূল প্রার্থী অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। মিমিকে চ্যালেঞ্জ করেছেন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ তথা কলকাতা পৌরসভার সাবেক মেয়র বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য। এ কেন্দ্র থেকে পরপর তিনবার জয়ী হতে পারেনি কোনো দল। পরপর দুবার জিতেছিলেন বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়। তবে তৃতীয়বার ১৯৮৪ সালে সোমনাথকে হারিয়ে জিতেছিলেন সেই সময়ের তরুণী কংগ্রেস প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার মিমিকে দিয়ে সেই ট্রেন্ড ভাঙতে চাইছেন মমতা। অন্যদিকে, বসিরহাট আসনে তৃণমূল প্রার্থী নুসরাত রাজনীতিতে নতুন। কিন্তু জয়ের ব্যাপারে তিনি প্রচারের প্রথম দিন থেকেই আত্মবিশ্বাসী। মানুষের দুয়ারে দুয়ারে পৌঁছাতে চেষ্টা করেছেন বলে দাবি করেছেন তিনি। নায়িকা নুসরতের ভক্ত অনেক।

মনোনয়ন পাওয়ায় অবাক হয়েছিলেন অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী। মিমি বলেন, এটা অপ্রত্যাশিত! তবে দিদি (মমতা) যখন আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন, সর্বোচ্চ চেষ্টা করব সেটা পালনের। মানুষের পাশে থাকতে চাই, মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। রাজনৈতিক বিশ্নেষকরা মনে করছেন, বসিরহাট মুসলিমপ্রধান এলাকা। এ ফায়দা তুলতেই মুসলিম অভিনেত্রী নুসরাতকে মনোনীত করা হয়েছে।