পশ্চিমবঙ্গে গেরুয়া ঝড়ের পূর্বাভাস

প্রকাশ: ২০ মে ২০১৯     আপডেট: ২০ মে ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে গেরুয়া ঝড়ের পূর্বাভাস দিচ্ছে বুথফেরত জরিপগুলো। অন্তত ছয়টি জরিপ সংস্থার ফলে দেখা যাচ্ছে, এ রাজ্যে দলটি এবার ১৪ থেকে ১৬টি আসন পেতে যাচ্ছে। আর তৃণমূল কংগ্রেসের আসন কমে ২৪ বা এর কাছাকাছি হতে পারে। তবে জরিপের এ ফল প্রত্যাখ্যান করে একে 'গপ্প' হিসেবে উড়িয়ে দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এনডিটিভির।

পশ্চিমবঙ্গে লোকসভার ৪২টি আসন রয়েছে। এখানে কখনও বিজেপির আধিপত্য ছিল না। ২০১৪ সালের নির্বাচনে মাত্র দুটি আসন পেয়েছিল তারা। সেই থেকে মাঝের পাঁচ বছরে পশ্চিমবঙ্গ দখলের পরিকল্পনায় নামেন প্রধানমন্ত্রী মোদি ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। মূলত তাদের দূরদর্শী নেতৃত্বে এ রাজ্যে প্রভাব বিস্তার করতে পেরেছে দলটি। জরিপের পূর্বাভাস অনুযায়ী এত বেশি আসন না পেলেও এ রাজ্যে বিজেপির সাংগঠনিক শক্তি যে বহুগুণ বেড়েছে, তার প্রমাণ পাওয়া যায়। ভারতের নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, ভোটগ্রহণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত বুথফেরত জরিপের ফল প্রকাশ করা যায় না। সেই হিসাবে রোববার লোকসভার শেষ ধাপের ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর থেকে প্রকাশ হতে থাকে বুথফেরত জরিপের ফল। আর এতেই উঠে এসেছে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির উত্থানের আগাম বার্তা। তবে এটি মানতে নারাজ মমতা। মমতা বলেছেন, 'বুথফেরত জরিপের গপ্প আমি বিশ্বাস করি না। এই গপ্প তৈরি করা হয়েছে ইভিএমের ভোটে জালিয়াতি করে ফল পাল্টে দেওয়ার নীলনকশা থেকে। আমি সব বিরোধী দলকে ঐক্যবদ্ধ, সাহসী ও শক্তিশালী অবস্থানে থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।'

এদিকে, পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির নেতারা মমতার এই প্রতিক্রিয়ায় পাল্টা আক্রমণ করে বলেছেন, প্রত্যাখ্যান করে লাভ নেই।

এদিকে লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী দল ও জোটের জয়-পরাজয়ের সম্ভাবনার ওপর করা বুথফেরত জরিপের ফল প্রত্যাখ্যান করেছেন অধিকাংশ বিরোধী দল। এক্ষেত্রে বেশি সুর চড়িয়েছেন বিজেপি-বিরোধীদের নিয়ে মহাজোট তৈরির মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা অবতীর্ণ অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ও তেলেগু দেশম পার্টির (টিডিপি) সভাপতি চন্দ্রবাবু নাইডু।

গতকাল দিল্লিতে কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন জোট ইউপিএর চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বৈঠক করার পর বুথফেরত জরিপের প্রতিক্রিয়ায় নাইডু বলেন,' জরিপকারীরা ভোটারদের পালস ধরতে পারেননি।