জিব্রাল্টারে সিরিয়াগামী তেলের ট্যাঙ্কার আটক

প্রকাশ: ০৫ জুলাই ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

জিব্রাল্টারের রাজকীয় নৌবাহিনী সিরিয়াগামীস ইরানের একটি তেলের ট্যাঙ্কার আটক করেছে। জিব্রাল্টারের সরকার বলেছে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে অপরিশোধিত তেল বহন করা হচ্ছে এমন ধারণা থেকে ট্যাঙ্কারটিকে যাত্রাবিরতিতে বাধ্য করা হয়। ট্যাঙ্কারটি সিরিয়ার বানিইয়াস তেল পরিশোধনাগারের উদ্দেশে যাচ্ছিল বলে কর্মকর্তারা জানান। খবর বিবিসি, আলজাজিরা ও এএফপির।

জিব্রাল্টার সরকারের মুখ্যমন্ত্রী ফাবিয়ান পিকার্ডো রাজকীয় নৌবাহিনীর প্রশংসা করে বলেন, 'আমাদের বিশ্বাস করার যথেষ্ট কারণ ছিল যে, গ্রেস-১ নামের এই ট্যাঙ্কারটি অপরিশোধিত তেল নিয়ে সিরিয়ার উদ্দেশে যাচ্ছিল। আমরা জিব্রাল্টারকে আন্তর্জাতিক আইন মেনে নিরাপদ ও নির্ঝঞ্ঝাট রাখতে চাই।' ট্যাঙ্কারটি সিরিয়ার উদ্দেশে যাচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে জিব্রাল্টার সরকারের অনুরোধে ব্রিটেন থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার ২০ জন নৌসেনা ও ৪২ জন কমান্ডো গিয়ে এটিকে আটক করেন। এটিকে আটক করার সময় বড় ধরনের কোনো সংঘর্ষ কিংবা সহিংস ঘটনা ঘটেনি। জিব্রাল্টারের সরকারপ্রধান পিকার্ডো বলেছেন, তিনি নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে আরও বিস্তারিত জানানোর জন্য ইউরোপিয়ান কমিশন ও ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের কাছে লেখা এক চিঠিতে অনুরোধ জানিয়েছেন।

বানিইয়াস তেল পরিশোধনাগার সিরিয়ার ভূমধ্যসাগর উপকূলবর্তী বন্দরনগরী তারতোসে অবস্থিত। এটি সিরিয়ার পেট্রোলিয়াম মন্ত্রণালয়ের একটি সহায়ক প্রতিষ্ঠান, যেখান থেকে দেশটির পেট্রোলিয়ামজাত পণ্যাদি বিপণন ও বিতরণ করা হয়ে থাকে।

তেলবাহী ট্যাঙ্কারটিকে জিব্রাল্টার থেকে চার কিলোমিটার দূরের জলসীমায় আটক করা হয়। এলাকাটিকে ব্রিটেনের জলসীমা হিসেবে ধরা হয়। তবে এটির মালিকানা দাবি করে থাকে স্পেনও। যুদ্ধপীড়িত সিরিয়ার ওপর ২০১১ সালের শেষ দিকে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। বেসামরিক নাগরিকদের ওপর দেশটির সরকার হত্যা ও নিপীড়ন চালাচ্ছে, এমন অভিযোগে ইউনিয়নের ২৮টি সদস্য দেশ এতে সম্মতি দেয়। সিরীয় সরকারের কয়েকজন মন্ত্রীসহ মোট ২৭৭ ব্যক্তির ওপর এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।